.ঢাকা, শুক্রবার   ১৯ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ৫ ১৪২৬,   ১৩ শা'বান ১৪৪০

জনপ্রিয় হচ্ছে ধানক্ষেতে মাছ চাষ

 প্রকাশিত: ১৭:৩৮ ৭ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৭:৪৬ ৭ নভেম্বর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে একই জমিতে ধান ও মাছের চাষ। গত কয়েক বছর ধরে এ কাজ করছেন কৃষক ও মৎস্যজীবীরা। অর্থনৈতিক উন্নয়নে এ যেন এক নবদিগন্তের সূচনা।

পৌর শহরসহ উপজেলার ৫টি ইউপির প্রায় সব নিচু এক ফসলি জমি ধান ও মাছ চাষে ব্যবহৃত হচ্ছে। লাভ বেশি হওয়ায় দিনদিন বাড়ছে এর পরিধি। উপজেলা কৃষি ও মৎস্য সম্প্রসারণ অফিসের সহযোগিতায় বানিজ্যিকভাবেও চলছে ধানের জমিতে মাছ চাষ।

বর্ষা মৌসুমের আগে ও পরে নিচু জমিগুলোতে প্রায়পাঁচ মাস পানি থাকে। তাই ধান কাটা শেষে বাকি সাত মাসে বিভিন্ন পদ্ধতিতে মাছ চাষ করেন মৎস্যজীবীরা। কয়েক বছর আগেও যে জমিতে শুধু ১০ হাজার টাকার ধান উৎপন্ন হতো। এখন সে জমিতে ধানের পাশাপাশি প্রায় ৫০ হাজার টাকার বিভিন্ন প্রজাতির মাছও চাষ করছেন তারা। এছাড়া মাছ চাষের ফলে জমির উর্বরতাওবাড়ছে। 

সরেজমিনে দেখা যায়,পৌর এলাকার তারাগন, দেবগ্রাম, খরমপুর উপজেলার আখাউড়া দক্ষিণ,মোগড়া, মনিয়ন্দ ও ধরখার ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকজুড়ে অসংখ্য জমি ও পুকুরেমাছ চাষ প্রকল্প।

পৌর এলাকার মিলন খাঁ বলেন,আমরা কয়েকজন মিলে কয়েক মাসের জন্যবেশ কিছু জমি ইজারা নিয়ে ধান চাষ করি। এরপর ধান কাটা শেষে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের চাষ করি।কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে এ থেকে ৬-৭ লাখ টাকা আয় করা সম্ভব।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জুয়েল রানা বলেন, কৃষি ও মৎস্য উৎপাদনে ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। একই জমিতে ধান ও মাছ চাষে জমি উর্বর থাকে, ফলনও ভাল হয়। পাশাপাশি মাছের খাবারও কম লাগে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম