জেনে নিন আমলকীর তেল তৈরির কৌশল

ঢাকা, শুক্রবার   ২১ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৭ ১৪২৬,   ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

জেনে নিন আমলকীর তেল তৈরির কৌশল

 প্রকাশিত: ২১:৫৯ ১৮ জুলাই ২০১৮   আপডেট: ২১:৫৯ ১৮ জুলাই ২০১৮

ছবি- সংগৃহীত

ছবি- সংগৃহীত

পাকা চুল কলো করতে আপনারা অনেক রকম কৌশল বা উপায় অনুসরণ করে থাকেন। অসময়ে চুল পেকে  যাওয়া, চুলের গোড়া নরম হয়ে চুল পরে যাওয়া। যখন কোন ওষুধ পত্র দিয়ে ও কমানো যায় না তখন বিভিন্ন ক্যামিকেল ব্যবহার করেন। আর আপনি নিজেই নিজের ক্ষতি ডেকে নিয়ে আনবেন। তা না করে আপনি যদি প্রাকৃতির দিকে তাকিয়ে দেখেন। তবে সেখানে অনেক কিছুই দেখতে পাবেন। এমন একটি ফল হল আমলকী। 

 
যা ব্যবহার করে আপনি আপনার সমস্যাগুলো দূর করতে পারেন। আর এ প্রাকৃতিক উপাদানগুলোর কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও নাই। তাই আজকে আপনাদের একটি তেল তৈরির উপায় বলব। যার উপাদান হিসেবে আমলকী ব্যবহার করা হবে। আমলকী আমাদের চুলের জন্য অনেক উপকারি তা আমরা সবাই জানি। আজকে বলব কিভাবে আমলকির উপাদানগুলো তেলে পরিণত করে ব্যবহার করতে পারবেন। কীভাবে বানাবেন আমলকীর তেল-
 
 
উপকরণ:
 
• নারকেল তেল
• আমলকী 
 
তৈরিকরণঃ 
 
আপনি প্রায় ৩০০ গ্রামের মত আমলকী নিয়ে নিবেন। আমলকী গুলো ভালো ভাবে ধুয়ে ও বীচি ছাড়িয়ে যতটা সম্ভব পরিষ্কার করে নিবেন। তারপর এ আমলকী গুলো মিক্সারে দিয়ে গুঁড়ো করে নিবেন। গুঁড়ো করতে খুব বেশি পরিমাণ পানি দেয়া যাবে না। এখানে ১ টেবিল চামচ পানি দিয়ে আমলকি গুলো শুকনো ভাবে গুঁড়ো করে পেস্ট বানিয়ে নিবেন। যতটুকু আমলকির পেস্ট নিবেন ঠিক ততটুকু পরিমাণ নারকেল তেল নিবেন। এটা একদম সমান সমান হতে হবে। যে বাটিতে আপনি তেলটা তৈরী করবেন সে বাটিতে নারকেল তেল নিয়ে নিবেন। স্টিলের বাটি হলে ভালো হবে। বাটিটা চুলার উপর দিয়ে দিবেন। তেল যখন গরম হয়ে আসবে তখন  আমলকীর পেস্ট দিয়ে দিবেন। আমলকীর পেস্ট দিয়ে এটি অনবরত নাড়তে হবে। কোন ভাবেই নাড়া বন্ধ করা যাবে না। এতে করে আমলকীর গুলো পুড়ে যেতে পারে। তেল বানাতে চুলার আচঁ মাঝারি রাখতে হবে। আলত হাতে নেড়ে নেড়ে এটি যখন গোল্ডেন ব্রাউন কালার হয়ে আসবে তখন নামিয়ে ফেলবেন। এ তেলটা ব্রাউন কালার হতে প্রায় ১৫ – ২০ মিনিট সময় লাগবে। এবার এটাকে নামিয়ে ঠান্ডা করে নিবেন। ১ ঘণ্টা পর যখন তেলটা ঠান্ডা হয়ে যাবে তখন একটি বাটিতে সুতি কাপড় বিছিয়ে নিবেন। যাতে আপনার ছেঁকে নিতে সুবিধা হবে। ছাঁকনির সাহায্যে ছেঁকে নিলে আপনার অনেক তেল নষ্ট হয়ে যাবে। সব থেকে ভালো পদ্ধতি হল সুতি কাপড়ের মাধ্যমে চিপে চিপে তেলটা বের করে নেয়া। তাহলে তেল নষ্ট হবে না।এভাবে চিপে চিপে আমলকী থেকে তেল বের করে নিবেন। যতটা সম্ভব তেল বের করে নিবেন। চেষ্টা করবেন বাটিতে যতটা তেল নিয়েছিলেন ঠিক ততটা বের করে নিতে। তাহলে আর আপনার তেল অপচয় হবে না। এবার তেল বের করা হয়ে গেলে তেল একটি কাচের বোতলে নিবেন। অবশ্যই এ তেল  কাচের বোতলে সংরক্ষণ করবেন। এভাবেই আপনি আমলকির তেল তৈরি করে নিতে পারবেন। 
 
 
এই তেল বানাতে যেহেতু আপনি আমলকী ব্যবহার করেছেন, আমলকীতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, যা অপরিপক্ব চুল পড়া বন্ধ করে। এতে প্রচুর এসিড রয়েছে যা দ্রুত চুল বাড়তে সাহায্য করে। আমলকীতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি , প্রোটিন , মিনারেল আছে। যা আপনাদের চুলে প্রয়োজনীয় নিউট্রিসাস জোগাতে সাহায্য করবে। আপনি এ তেলটি বানাতে নারকেল তেল ব্যবহার করেছেন। নারকেল তেলে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন , মিনারেল আছে। যা আপনাদের চুলকে ন্যারিস করবে। নারকেল তেলে প্রচুর পরিমানে ‘ভিটামিন ই’ , ‘ভিটামিন এ’ থাকে। যা আপনাদের স্কাল্পকে স্বাস্থ্যবান করে তুলবে। এ তেলটি রুম তাপমাত্রায় ২ – ৩ মাস রেখে ব্যবহার করতে পারবেন। এ তেল থেকে অনেক উপকারিতা পেতে হলে এ তেল পরিষ্কার মাথায় লাগাবেন। রাতে ঘুমানোর আগে লাগিয়ে ম্যাসাজ করবেন। সারা রাত রাখতে পারলে ভালো হবে। আপনারা যে ভাবে নারকেল তেল ব্যবহার করেন ঠিক একই ভাবে এ তেলটি ও ব্যবহার করবেন।
 
ডেইলি বাংলাদেশ/এসআই