.ঢাকা, রোববার   ২৪ মার্চ ২০১৯,   চৈত্র ১০ ১৪২৫,   ১৭ রজব ১৪৪০

মুক্তিযুদ্ধের ৪৭ বছর পরও স্বীকৃতি পাননি জিল্লুর

দিনাজপুর প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: ১৭:৩২ ১০ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৭:৩২ ১০ নভেম্বর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নিয়েও স্বীকৃতি না পাওয়ার আক্ষেপ নিয়ে ইহলোক ত্যাগ করেছেন দিনাজপুরের জিল্লুর রহমান।

তবে তার আশা একদিন না একদিন মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি তিনি পাবেনই। একথা জানিয়েছেন জিল্লুরের স্ত্রী জহিমা বেগম।

তিনি বলেন, আমার স্বামী মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি না পাওয়ার আক্ষেপ নিয়ে মারা গেছেন। কিন্তু তার আশা ছিল একদিন না একদিন গেজেটে তার নাম উঠবেই। তাই তার সনদপত্র ও অন্যান্য কাগজ যত্ন করে রেখে দিয়েছি।

মুক্তিযুদ্ধের সময় হাবিলদার কবিরের কাছে প্রশিক্ষণ নিয়ে ৭ নম্বর সেক্টরের হামজাপুর ক্যাম্প থেকে দিনাজপুরের বিভিন্ন এলাকায় সম্মুখযুদ্ধ করেছেন জিল্লুর রহমান। যুদ্ধ শেষে ক্যাপ্টেন শাহরিয়ারের কাছে অস্ত্র জমা দেন তিনি।

দীর্ঘদিন বার্ধ্যক্যজনিত রোগে ভুগে ২০১১ সালের ২৭ ডিসেম্বর মারা যান মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুর রহমান। তিনি চিরিরবন্দর উপজেলার ইসুবপুর ইউনিয়নের খোচনা গ্রামের সজিমদ্দিনের ছেলে। জিল্লুরের স্ত্রী ও ছয় সন্তানের আশা, তাদের বাবার স্বীকৃতি মিলবেই।

বসতভিটা ছাড়া তেমন কিছু নেই জিল্লুর রহমানের। বেচে থাকতেই মেয়েদের বিয়ে দিয়েছেন। তিন ছেলে দিনমজুর। বৃদ্ধা স্ত্রী জহিমাও বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। 

বৃদ্ধা জহিমা বেগমের একটাই দাবি, তার স্বামীর নাম মুক্তিযুদ্ধের স্বীকৃতি স্বরূপ গেজেটে অন্তর্ভুক্ত করা হোক।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর