জামিনে বের হয়ে এসেই বাদীকে হত্যার হুমকি
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=132140 LIMIT 1

ঢাকা, রোববার   ০৯ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২৬ ১৪২৭,   ১৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

জামিনে বের হয়ে এসেই বাদীকে হত্যার হুমকি

ফেনী প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:১৪ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আপডেট: ২১:২৩ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ফেনীর দাগনভূঞায় জামিনে বের হয়ে এসেই মামলা তুলে নেয়ার জন্য বাদীকে হত্যার হুমকি দিয়েছেন আসামিরা। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ হুমকি দেয়া হয়।

আসামিদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেছেন মামলার বাদী জাহানারা বেগম।

উপজেলার উদরাজপুর গ্রামের করিম বক্স পাটোয়ারী বাড়ির নুরুল আলম ও বাদীর সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। গত ২৬ আগস্ট সকালে কোনো কারণ ছাড়া আসামিরা বসত ঘরে প্রবেশ করে জাহানারা বেগমের ওপর হামলা ও ছেলে দেলোয়ার হোসেনকে কুপিয়ে জখম করে। এ ছাড়া তার মেয়ে হালিমা খাতুন রুনা ও শামসুন্নাহার শিমুর গায়ে থাকা কাপড় ধরে টানাটানি করে শ্লীলতাহানি ঘটায়। পরে শিমুর গলায় থাকা ১০ আনা ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। তাদের চিৎকারে স্থানীয় ও বাড়ির লোকজন এগিয়ে এসে রক্তাক্ত অবস্থায় দেলোয়ারেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসক গুরুতর আহত দেলোয়ারকে দ্রুত ফেনী জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন। 

ফেনীতে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। 

গত ৪ আগস্ট জাহানারা বেগম বাদী হয়ে নুরুল আলমের ছেলে তৌফিক আহমদ রায়হান, মকবুল আহমদের ছেলে নুরুল আলম ও তার স্ত্রী রোকেয়া বেগমকে আসামি করে দাগনভূঞা থানায় মামলা করেন। ওই রাতেই পুলিশ নুরুল আলম ও তার স্ত্রী রোকেয়া বেগমকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করেন। 

মামলার বাদী জানান, আসামিরা জামিনে বের হয়ে এসেই মামলা তুলে নিতে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। ফলে পরিবার পরিজন নিয়ে আতঙ্কিত অবস্থায় রয়েছেন তারা। 

তিনি আরো জানান, তার ছেলের মাথায় ১৫টি সেলাই দিতে হয়েছে। কুপিয়ে জখম করার কারণে বর্তমানে তার ছেলে মানসিকভাবে খুবই নাজুক অবস্থায় রয়েছে।

মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই মনোয়ার হোসেন জানান, প্রধান আসামি তৌফিক আহমদ রায়হানকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। 

দাগনভূঞা থানার ওসি আসলাম সিকদার জানান, হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ