Alexa জামালপুরে আরেক মুক্তিযোদ্ধার ‘বীর’ খেতাব বর্জন!

ঢাকা, শুক্রবার   ২৪ জানুয়ারি ২০২০,   মাঘ ১১ ১৪২৬,   ২৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

জামালপুরে আরেক মুক্তিযোদ্ধার ‘বীর’ খেতাব বর্জন!

জামালপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ

 প্রকাশিত: ২০:৪৪ ২২ ডিসেম্বর ২০১৭   আপডেট: ১৭:০৪ ৫ মার্চ ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ রেজাউল করিম আজাদ তার ‘বীর’ খেতাব বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। ভুয়া মুক্তিযোদ্ধারা রাষ্ট্রীয় সম্মানসহ সব সুযোগ-সুবিধা নেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বীর খেতাব বর্জন করেছেন। মাদারগঞ্জ উপজেলার চরগাবের গ্রামে তার বাড়ি।

মেলান্দহের মুক্তিযোদ্ধা আবু হোসেনের মরণোত্তর গার্ড অব অনারসহ বীর মুক্তিযোদ্ধা খেতাব বর্জনের পর এবার ১১নং সেক্টরের এই মুক্তিযোদ্ধা তার ‘বীর’ খেতাব বর্জনের ঘোষণা দিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বরাবর ডাকযোগে তিনি এ ঘোষণা পাঠিয়েছেন।

আজাদ জানান, ৭ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে জীবন বাজি রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন।
প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের রাষ্ট্রীয় ভাতা, রাষ্ট্রীয় মর্যাদা, সন্তান-নাতি-পুতির কোটায় চাকরিসহ নানা সুযোগ-সুবিধা প্রদান করছেন। এ সুযোগ নিতে একশ্রেণির মুক্তিযোদ্ধা, জামুকা ও মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়সহ রাঘব বোয়ালরা অর্থের বিনিময়ে অমুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তিযোদ্ধা বানাচ্ছেন। এতে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধারা রাষ্ট্রীয় সম্মানসহ সব সুযোগ-সুবিধা নিচ্ছে।

তিনি আরো জানান, এসব কারণে মৃত্যুর পর তাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে গার্ড অব অনার না দেয়ার জন্য ২০১৬ সালের ১৭ জুলাই জামালপুরের জেলা প্রশাসক ও মাদারগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে চিঠি দিয়েছিলেন।

জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর জানান, তিনি এ ধরনের কোনো চিঠি এখনো হাতে পাননি।

উল্লেখ্য, ১২ ডিসেম্বর মেলান্দহ উপজেলার ফুলছেন্না গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবুল হোসেন তার ‘বীর’ উপাধি বর্জন করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পত্র দেন।এ নিয়ে পত্রপত্রিকায় খবর প্রকাশিত হলে ভুয়া-প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে লাঞ্ছিতের ঘটনা পর্যন্ত ঘটে গেছে। এ ঘটনায় মেলান্দহে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আজ/এমআরকে