জাবি’র তদন্ত কমিটি নিয়ে বিতর্ক, শিক্ষার্থীদের অনাস্থা

ঢাকা, বুধবার   ২২ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪২৬,   ১৭ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

জাবি’র তদন্ত কমিটি নিয়ে বিতর্ক, শিক্ষার্থীদের অনাস্থা

 প্রকাশিত: ১২:০৪ ২২ জুলাই ২০১৭  

মহাসড়ক অবরোধ ও উপাচার্যের বাসভবন ভাঙচুরের ঘটনায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) কর্তৃপক্ষের গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্যদের ‘বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের’ কারণ দেখিয়ে অনাস্থা জানিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। জানা যায়, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের শাস্তির দাবিতে মৌন মিছিল করে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামীপন্থী শিক্ষকরা। ওই মিছিলে ঘটনার তদন্ত কমিটির অন্যতম সদস্য অধ্যাপক রাশেদা আখতার উপস্থিত ছিলেন। তদন্ত কার্যক্রম শেষ হওয়ার আগেই শিক্ষার্থীদের শাস্তি চেয়ে কর্মসূচিতে অংশ নেয়ায় কমিটির নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠে সর্বমহলে। তদন্ত কমিটির সদস্য এভাবে মিছিলে অংশগ্রহণ করায় তদন্ত কমিটির উপর অনাস্থা জানিয়ে এ ‘তদন্ত কমিটির’ কাছে কোন প্রকার চিঠি প্রদান ও সাক্ষ্যপ্রদানে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষার্থীরা। এদিকে ঘটনার প্রথম ১৫ জন শিক্ষার্থীকে গত ২০ জুলাই সাক্ষ্যপ্রদানের জন্য ডাকা হলেও উপস্থিত হয়েছেন মাত্র তিনজন। বাকি শিক্ষার্থীরা তদন্ত কমিটিকে পক্ষপাতদুষ্ট উল্লেখ করে নতুন করে বিতর্কমুক্ত শিক্ষকদের দিয়ে তদন্ত কমিটি পুনর্গঠনের দাবি জানিয়ে উপাচার্য বরাবর আবেদন জানায়। উপস্থিত হওয়া তিনজন শিক্ষার্থীর মধ্যে একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মরত সাংবাদিক আর বাকি দুজন সাধারণ শিক্ষার্থী। যাদের কেউই ওই দিন ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন না। এদের তিনজনকে দীর্ঘ সময় অহেতুক জেরা করে হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদিকে শিক্ষার্থীরা উপস্থিত না হওয়ায় আগামী ২৬ জুলাই পরবর্তী সাক্ষাতের জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি নতুন করে পুনর্গঠন করা হবে কিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক মো. আবুল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘কমিটি পুনর্গঠন করার কোনো সম্ভাবনা নেই’। এসব বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্ত কমিটি প্রধান অধ্যাপক অসিত করণ পাল বলেন, ‘কমিটি নিজেদের মতো করে কাজ করে যাবে।’ এদিকে শিক্ষার্থীরা উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বরাবর এক আবেদনপত্রের মাধ্যমে জানান, যে সিন্ডিকেট শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন হয়রানিমূলক মামলা দায়ের করে, সেই সিন্ডিকেটের সদস্যদের দ্বারা গঠিত তদন্ত কমিটি যে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে কাজ করতে সক্ষম নয় সেই আশঙ্কা আমরা শুরু থেকেই করে আসছি। আর সেই আশঙ্কা সত্য বলে প্রমাণিত হলো গত ১৭ জুলাই (সোমবার) তদন্ত কমিটির একজন সদস্য অভিযুক্ত শিক্ষার্থীদের শাস্তির দাবির মিছিলে অংশগ্রহণ করায়। এ অবস্থায়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে উদ্ভূত সংকটময় পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে বর্তমান তদন্ত কমিটি বাতিল করে পক্ষপাতহীন ও গ্রহণযোগ্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে চলমান সংকট নিরসনে যথাযথ ভূমিকা রাখার আহবান জানান শিক্ষার্থীরা। প্রসঙ্গত, বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় সড়ক অবরোধ ও উপাচার্যের বাসভবন ভাঙচুর করে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ছয় সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে। শুরু থেকে এ তদন্ত কমিটিকে প্রশাসনপন্থী আখ্যা দিয়ে প্রত্যাখান করে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এ তদন্ত কমিটি বাতিল ও মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দোলন করে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। ডেইলি বাংলাদেশ/এসআই
Best Electronics