Alexa জাদুঘর যেন বাংলাদেশের ইতিহাস

ঢাকা, রোববার   ১৯ জানুয়ারি ২০২০,   মাঘ ৫ ১৪২৬,   ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

জাদুঘর যেন বাংলাদেশের ইতিহাস

আদিল হোসেন তপু, ভোলা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:০৬ ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৫:২৯ ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস আগামী প্রজন্মের মাঝে তুলে ধরার জন্য ভোলায় তিনটি জাদুঘর থাকলেও দর্শনার্থীদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে বাংলাবাজার স্বাধীনতা জাদুঘর। 

এই জাদুঘরে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষিত রয়েছে এখানে। যেখানে প্রতিদিন দর্শনার্থীরা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ছুটে আসে মুক্তিযুদ্ধের সহ বাঙালির স্বাধীনতার ইতিহাস জানতে। এর মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধসহ এ দেশের আন্দোলন সংগ্রামের ইতিহাস জেনে কিশোর-তরুণরা সমৃদ্ধ হবে বলে মনে করেন স্থানীয়রা। 

সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের একান্ত প্রচেষ্টায় নির্মাণ করা হয় এ জাদুঘরটি।

ভোলার বাংলাবাজার স্বাধীনতা জাদুঘর। ১৯৪৭ এর দেশভাগ থেকে শুরু করে একাত্তরে স্বাধীনতা সংগ্রামের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসের সংগ্রহশালা। জাদুঘরের পরতে পরতে রয়েছে বাংলাদেশ অভ্যুদয়ের ইতিহাস। ভাষা আন্দোলনে উত্তাল ঢাকা, ৬৬'র ছয়দফা, ৭ মার্চে বঙ্গবন্ধুর ভাষণের ডিজিটাল পরিবেশন থেকে রয়েছে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর পাকিস্তানি বাহিনীর নির্যাতন, রণাঙ্গণে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মুখ যুদ্ধসহ নানা আলোকচিত্র।

দর্শনাথীরা বলেন, এখানে আসলে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ সর্ম্পকে মানুষ অনেক বিষয় জানতে পারবে। এই স্বাধীনতা জাদুঘরের মধ্যে দিয়ে ভোলার ভবিষ্যৎ প্রজন্ম বাংলাদেশের সব ইতিহাস এখানে দেখতে পাবে।

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

জাদুঘরে ঘুরতে আসা দর্শনার্থী শাহারিয়ার জিলন জানায়, বাংলাবাজার মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরটি আগামী প্রজন্মের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। এখানে আসলে বাঙালি জাতির হাজারো বছরের ইতিহাস ও জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। বিশেষ করে ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানা যাবে। তরুণ প্রজন্ম এখানে এসে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। 

তিনতলা এই জাদুঘরে রয়েছে তিনটি গ্যালারি। আছে মাল্টিমিডিয়া ডিসপ্লে হল রুমসহ লাইব্রেরি ও গবেষণাগার। এছাড়া ডিজিটাল টাচস্ক্রিন ব্যবহার করে বিভিন্ন তথ্য ও ছবি দেখতে পারেন দর্শনার্থীরা। 

জাদুঘরের দায়িত্বে থাকা সোয়েব জানায়, বই পড়া ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনের সুবিধা রয়েছে এখানে। নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধ না দেখলেও এই জাদুঘরটিতে আসলে তাদের মধ্যে দেশপ্রেমের অনুপ্রেরণা জাগবে। 

তিন বছর আগে ভোলা জেলা শহর থেকে ১২ কিলোমিটার দক্ষিণে ভোলা-চরফ্যাশন সড়কের বাংলাবাজার এলাকায় সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে নির্মিত হয় স্বাধীনতা জাদুঘর। যার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত । ২০১৮ জানুয়ারিতে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এরপর থেকে প্রতিদিন দূর দূরান্ত থেকে দর্শনার্থীরা এই জাদুঘর দেখতে আসেন। 
 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ