জাতীয় গ্রিডে সৌর বিদ্যুৎ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৩ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৯ ১৪২৬,   ১৮ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

জাতীয় গ্রিডে সৌর বিদ্যুৎ

 প্রকাশিত: ১৭:০৯ ৯ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৭:০৯ ৯ নভেম্বর ২০১৮

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

কক্সবাজারের টেকনাফে সোলার পার্ক দেশের বিদ্যুৎ খাতে সম্ভাবনার নতুন দ্বার উন্মুক্ত করেছে। টেকনাফ সোলারটেক এনার্জি লি. নামের সোলার পার্কটি থেকে প্রথমবারের মতো জাতীয় সঞ্চালন গ্রিডে যোগ হচ্ছে ২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ।

টেকনাফের ১২ মেগাওয়াটের চাহিদা পুরণ করে জাতীয় সঞ্চালন গ্রিডেও বিদ্যুত সরবরাহ করা হচ্ছে সৌর বিদ্যুত কেন্দ্র থেকে।

নবায়নযোগ্য জ্বালানির সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকার টেকনাফ নাফ নদীর তীরে স্থাপন করে দেশের বৃহৎ সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্র। ১১৬ একর জমিতে বসানো হয়েছে ৮৭ হাজার সৌর প্যানেল। প্যানেলগুলোর মাঝে পাঁচটি সাব-স্টেশন থেকে উৎপাদিত হচ্ছে ২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। সূর্য্যরে তাপ থেকে উৎপাদিত বিদ্যুৎ টেকনাফের পাশাপাশি জাতীয় সঞ্চালন গ্রিডে সরবরাহ করা হচ্ছে।

সৌর বিদ্যুৎ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করেছে জুলস পাওয়ার লিমিটেড। নবায়নযোগ্য জ্বালানির সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে টেকনাফ সোলার পার্কটি প্রথম সফলতা মুখ দেখেছে।

সোলার প্যানেলের মাধ্যমে বৃহৎ আকারে বিদ্যুৎ উৎপাদন যে সম্ভব এটি তার বাস্তব উদাহরণ। এমনটাই জানালেন জুলস পাওয়ার লিমিটেডের প্ল্যান্ট ম্যানেজার মিজানুর রহমান ।

প্রজেক্ট ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান জানান, আট মাসের অক্লান্ত পরিশ্রমে সোলারল্যান্ড বাংলাদেশ পাওয়ার প্লান্টটি জুলস পাওয়ার লিমিটেডকে হস্তান্তর করতে সক্ষম হয়েছে।

কক্সবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান জানান, এ প্রকল্প হতে শুধু মাত্র দিনের বেলায় বিদ্যুৎ পাওয়া যায়। কিন্তু রাতের বেলায় বিদ্যুৎ ধরে রাখার প্রযুক্তি এখানে সংযুক্তি করা হয়নি।

কক্সবাজারের ডিসি মো. কামাল হোসেন জানান, কক্সবাজারে নবায়নযোগ্য আরো প্রকল্পের পরিকল্পনা আছে সরকারের। এমন পরিকল্পনা নিয়ে বেসরকারিভাবে কেউ এগিয়ে আসলে সহায়তা দেবার কথা জানালেন তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসকে

Best Electronics