Alexa জসিমকে উলঙ্গ করে নির্যাতনের কারণ

ঢাকা, শুক্রবার   ১৫ নভেম্বর ২০১৯,   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬,   ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

জসিমকে উলঙ্গ করে নির্যাতনের কারণ

ভোলা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৪৫ ২৮ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ২০:১৩ ২৮ অক্টোবর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ভোলার লালমোহনে উলঙ্গ করে হাত-পা বেঁধে নির্যাতন করার ঘটনায় আটক হাসানের বিরুদ্ধে অবশেষে মামলা হয়েছে। এক বছর আগে মোটরসাইকেল চালক জসিম ইয়াবা বিক্রি করতে অস্বীকার করায় সন্ত্রাসী আখ্যা দিয়ে দুই সন্তানের সামনে তাকে নির্যাতন করা হয়।

নির্যাতনের শিকার জসিমের স্ত্রী জয়নব বিবি বাদী হয়ে সোমবার লালমোহন থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

মামলায় হাসানকে আটক দেখিয়ে তার সাতদিনের রিমান্ডের আবেদন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ওসি মীর খায়রুল কবীর।

এদিকে নির্যাতনের এ ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তোলপাড় সৃষ্টি হওয়ায় সোমবার বিকেল ৩টায় লালমোহন থানায় এক সংবাদ সম্মেলন ডাকেন ইউএনও হাবিবুল হাসান রুমি ও ওসি মীর খায়রুল কবীর।

সংবাদ সম্মেলনে তারা বলেন, ভিডিওটি ২০১৮ সালের ২৫ জুলাইয়ের। ওই সময় কেউ এ ঘটনা প্রকাশ করেননি। জসিমকে নির্যাতনের কোনো অভিযোগও থানায় দায়ের করেননি।

সোমবার ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়লে প্রশাসনের দৃষ্টিগোচর হয়। এর পরপরই ভিকটিম জসিমের স্ত্রীকে ডেকে এনে মামলা নেয়া হয়েছে। আটক হাসানের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী ও হালিশহর থানায় মানব পাচার, ডাকাতি ও চুরির অভিযোগে তিনটি মামলা রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, ঘটনা প্রায় বছরখানেক আগের হলেও নির্যাতিত জসিমের স্ত্রী ও মেয়েরা ভয়ে কাউকে বলতে পারেননি। এমনকি ওই সময় ভোলাতে চিকিৎসাও করাতে পারেননি। পরে এক আত্মীয়ের সাহায্য নিয়ে জসিমকে ঢাকার একটি ক্লিনিকে ভর্তি করায় অসহায় স্ত্রী ও সন্তানরা।

ছয় থেকে সাত মাস চিকিৎসার পর ভোলায় ফিরে আসলে তিনবার ইয়াবা মামলায় ফাঁসানো হয় তাকে। দীর্ঘদিন পর সেই ঘটনার ভিডিও প্রকাশ হওয়ায় আবারো আতঙ্কে রয়েছেন তারা। এরমধ্যে ভিটেমাটি ছাড়া করার হুমকিও দেয়া হয়েছে তাদের।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে আতঙ্ক নিয়ে নির্যাতিত বাবার শিশু সন্তান বলে, তাদের নাম প্রকাশ করলে এবার ভিটেমাটিও ছাড়তে হবে। শুধু মাদক ব্যবসায় রাজি না হওয়ায় তার বাবার ওপর এমন লোমহর্ষক নির্যাতন চালানো হয়।

উল্লেখ্য, রোববার রাতে নির্যাতনকারী কালমা ইউপির চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ডাকাতি মামলার আসামি হাসানকে পুলিশ গ্রেফতার করে। এর পরপরই ভিডিওটি ছড়িয়ে দেয়া হয় ফেসবুকে।

ভিডিওতে দেখা গেছে, উপজেলার ডাওরী বাজারে একই ইউপির ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা শাহার আলী বাড়ির আব্দুল মুন্নাফের ছেলে মোটরসাইকেল চালক জসিমকে শত শত মানুষ ও তার দুটি শিশু সন্তানের সামনে নির্যাতন করা হচ্ছে।

নির্যাতনকারী হাসান কালমা ইউপির ২ নম্বর ওয়ার্ডের মিস্ত্রি বাড়ির আবুল হোসেনের ছেলে। মোটরসাইকেল চালক জসিমকে তার দুটি শিশু সন্তানের সামনে সন্ত্রাসী আখ্যা দিয়ে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্মমভাবে নির্যাতন করে। জসিমকে নির্যাতনের ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্র নিন্দার ঝড় বইতে শুরু করে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম