.ঢাকা, রোববার   ২১ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ৭ ১৪২৬,   ১৫ শা'বান ১৪৪০

জবিতে সাংবাদিকের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

জবি প্রতিনিধি    ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৫২ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১৮:৫৪ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

নিজেদের মধ্যেকার বিবাদকে কেন্দ্র করে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) ছাত্রলীগের দুগ্রুপের সংঘর্ষ চলাকালে কর্তব্যরত সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদ, জড়িতদের শাস্তি ও ক্যাম্পাসে সাংবাদিকদের নিরাপত্তার দাবিতে মানববন্ধন করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক জোট।

মঙ্গলবার বেলা ১২ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে জবিতে কর্মরত সব সাংবাদিক কালো কাপড় দিয়ে মুখ বেধে স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহন করে।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ক্যাম্পাসে বারবার ছাত্রলীগ কর্তৃক সাংবাদিকরা নির্মম হামলার শিকার হচ্ছে। সাংবাদিকসহ সাধারণ শিক্ষার্থীদের অভিভাবক হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন শিক্ষার্থীদের যাবতীয় নিরাপত্তার দায়িত্ব নেয়ার কথা। সেখানে জবি প্রশাসন নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে।  মাঝে মাঝে প্রশাসনের উসকানিমুলক কথাবার্তার কারণেও আমরা ছাত্রলীগ কর্তৃক হামলার স্বীকার হই। কর্তৃপক্ষের অসচেতনতা এবং অবহেলার কারনেও ক্যম্পাসে কিছু উগ্র শিক্ষার্থী সুযোগ পেয়ে যায়। এসময় কর্তৃপক্ষ অপরাধীদের বিরুদ্ধে ২৪ ঘন্টার মধ্যে কোনো পদক্ষেপ গ্রহন না করে তাহলে আরো কঠিন পদক্ষেপ নেয়ার হুশিয়ারী দেন বক্তারা। মানববন্ধনে অন্যান্য বক্তারা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের রহস্যজনক ভূমিকার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক জোট এর আহবায়ক আলোকিত বাংলাদেশ এর জবি প্রতিনিধি জাহিদুল ইসলামের সাদেকের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব রবিউল আলম এর সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য প্রদান করেন ইউএনবি এর আজিজুল হক, ঢাকা প্রতিদিন এর নোমান আব্দুল্লাহ, জবি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদকও বাংলা নিউজ ২৪ ডটকমের দিপু রায়হান জবি সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও যুগান্তরের জবি প্রতিনিধি হুমায়ুন কবির হুমু, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ফারহানা রাহি, দৈনিক করতোয়ার শাপলা সোমা বিডি নিউজ টুয়েন্টিফোর এর ফখরুল ইসলামসহ সাংবাদিক জোটের অন্যান্য বক্তারা।

বক্তব্যে ফখরুল ইসলাম শাহীন বলেন, যারা এ পরিকল্পিত হামলায় জড়িত তাদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। নয়তো আগামীতে কঠোর সিদ্ধান্ত ও কর্মসূচী পালন করা হবে।

মানববন্ধন শেষে সাংবাদিকরা কালো ব্যাজ ধারন করে পুরো ক্যাম্পাসে মৌন মিছিল করেন। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ