Alexa ছয় লেনের ফ্লাইওভার চালু হচ্ছে শিগগিরই

ঢাকা, সোমবার   ২৬ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ১১ ১৪২৬,   ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

Akash

ছয় লেনের ফ্লাইওভার চালু হচ্ছে শিগগিরই

 প্রকাশিত: ১৩:৫৯ ২২ ডিসেম্বর ২০১৭   আপডেট: ১০:৪৪ ২৩ ডিসেম্বর ২০১৭

ফেনীর মহিপাল ফ্লাইওভারের নকশা

ফেনীর মহিপাল ফ্লাইওভারের নকশা

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফেনীর মহিপালে নির্মিত দেশের প্রথম ছয় লেনের ফ্লাইওভার আগামী ৪ জানুয়ারি উদ্বোধন হতে পারে। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের রং, সাজসজ্জা ও প্রস্তুতির কাজ।  এরইমধ্যে ৯৭ শতাংশ কাজ শেষ।

জানা যায়, ৬৯০ মিটার দীর্ঘ ২৪ দশমিক ৬২ মিটার প্রশস্ত এই ফ্লাইওভারের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ১৫৭ কোটি টাকা। ২০১৫ সালের নভেম্বরে নির্মাণ কাজ শুরু হয়ে প্রকল্পটির মেয়াদ শেষ হওয়ার নির্ধারিত সময় ছিল ২০১৮ সালের জুন মাসে। প্রায় ছয় মাস আগেই উদ্বোধন হতে চলেছে ফ্লাইওভারটি।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১৯ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন লিমিটেডের তত্ত্বাবধানে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আবদুল মোনেম লিমিটেড মহিপাল ফ্লাইওভারের নির্মাণ কাজ করছে।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর বরাত দিয়ে ফেনী পৌরসভার ডিপুটি মেয়র স্বপন মিয়াজী বলেন, ৪ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী ঢাকায় বসে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ফেনীর এই ফ্লাইওভারটির উদ্বোধন করবেন। এসময় ফেনীতে এর ফলক উন্মোচন করবেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এ উপলক্ষে মহিপাল চাড়িপুর স্কুল মাঠে সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকা-চট্টগ্রামের দ্রুতগতির গাড়িগুলো ফ্লাইওভার ব্যবহার করে গন্তব্যে চলে যেতে পারবে। এতে করে সময় যেমন বাঁচবে তেমন যানজটে পড়তে হবে না।

অপরদিকে ফ্লাইওভারের নিচ দিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রামগামী ছোট পরিবহন চলাচলের পাশাপাশি মহিপাল হয়ে নোয়াখালী-লক্ষ্মীপুর রুটে চালাচলকৃত (দাগনভূঞা, সেনবাগ, বেগমগঞ্জ, কোম্পানীগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর, রামগতি ও রায়পুর) গাড়িগুলো চলাচল করে।

ফেনী ট্রাফিক পুলিশের ওসি মোহাম্মদ গোলাম ফারুক জানান, মহিপাল অংশে পূর্বে যানজট সৃষ্টি হলেও ফ্লাইওভারটি চালু হলে গাড়ির চাপ আগের থেকে অনেক কমে যাবে।

নির্মাণ কাজের তত্ত্বাবধায়ক সেনাবাহিনীর স্পেশাল ওয়ার্কস অর্গানাইশেনের (এসডব্লিউবি) কর্মকর্তা মেজর ফয়সাল বলেন, ফ্লাইওভারের ৯৭ শতাংশের কাজ শেষ হয়েছে। চলতি মাসের ৩১ তারিখের মধ্যে সব ধরনের কাজ শেষ হয়ে যাবে।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মহিপালের প্রবেশপথ চাঁড়িপুর রাস্তার মাথা থেকে মহাসড়কের ফেনী পল্লীবিদ্যুৎ অফিসের আগ পর্যন্ত নির্মিত হয়েছে ৬৬০ মিটারের এই ফ্লাইওভার।  এরইমধ্যে ৬৫০ মিটারের কাজ শেষ হয়েছে। সর্বমোট ১৭৮টি পাইলের সবগুলোর কাজ শেষ হয়েছে।

এছাড়া ২২ পাইলের ক্যাম্প, মোট ৬৬ দশমিক ৩৩ মিটার পিয়ার কলামের কাজ, দুই পাশে ১৩২০ মিটারের কাজ, ২২১০ মিটার সাইট ড্রেনের মধ্যে ২১০৪ মিটারের কাজ শেষ হয়েছে। মোট ১৩২ পিসি গার্ডার, অ্যাপ্রোচ রোড ডান-বামের ৩৬৪০ মিটারের মধ্যে ৩৫৩০ মিটার, ১০টি পিয়ার হেডের কাজ, ১১টি ডেক্স স্লাবের কাজ, ৫০৬টি ক্রস গার্ডার, ৩৬৪০ মিটার কার্ভ স্টোনের কাজ, ১৩২০ মিটার ফুটপাতের ওয়ালের ১৩১৫ মিটারের কাজ, ৬৬০টি মেডিয়ান পিলারের ৬৫০টির কাজ, রি ব্লক বসানোর কাজও শেষ হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসআর

Best Electronics
Best Electronics