Alexa ছয় মাসে দুই মাস’ই অনুপস্থিত

ঢাকা, রোববার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৭ ১৪২৬,   ২২ মুহররম ১৪৪১

Akash

ছয় মাসে দুই মাস’ই অনুপস্থিত

জাহাঙ্গীর আলম ভূঁইয়া, সুনামগঞ্জ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:০৭ ২ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ২৩:৩১ ২ আগস্ট ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

সুনামগঞ্জের ছাতকের কৈতক ২০ শয্যার হাসপাতালে কর্মরত রয়েছেন ডা. মো. আবু সালেহীন খান। বছরের ছয় মাসের মধ্যে দুই মাস কর্মস্থলে অনুপস্থিত ছিলেন তিনি। শুধু এই অভিযোগ নয়, তার বিরুদ্ধে জেলা সিভিল সার্জন ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের বরাবরে কয়েকটি অভিযোগ জমা হয়েছে।

অভিযোগের ভিত্তিতে অনুসন্ধানে দেখা যায়, চলতি বছরের ছয় মাসের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে প্রায় দুই মাস অনুপস্থিত ছিলেন ডা. মো. আবু সালেহীন খান। তিনি জানুয়ারি মাসে দুই দিন, ফেব্রুয়ারি মাসে টানা সাতদিন, মার্চ মাসে সাতদিনসহ মে মাস পর্যন্ত ২৩দিন হাসপাতালে অনুপস্থিত থাকেন। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বরাবরে অভিযোগ গেলে তিনি নৈমিত্তিক ছুটি অনুমোদন করেন। এছাড়া তিনি জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত আরো ২৭দিন বিনা অনুমতিতেই হাসপাতালে অনুপস্থিত ছিলেন। অথচ হাসপাতালের পাশে তার সরকারি কোয়ার্টারে প্রাইভেট চেম্বারে রোগী দেখেছেন।

অনুসন্ধানে আরো দেখা যায়, কৈতক হাসপাতালে সাতজন চিকিৎসকের পদ থাকলেও কর্মরত রয়েছেন তিনজন। যাতায়াতের সুবিধা থাকায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও দোয়ারাবাজারের রোগীরাও আসেন হাসপাতালটিতে। জনবহুল এলাকায় হাসপাতালটি থাকায় রোগীর সংখ্যাও বেশি। এছাড়া বিশাল জনগোষ্ঠীকে সেবা দিতে তিনজন চিকিৎসককে হিমশিম খেতে হয়। এর মধ্যে একজনের অনুপস্থিতি স্বাস্থ্যসেবা ব্যাহত হয়।

এ ব্যাপারে ডা. আবু সালেহীন খান জানান, অসুস্থতা ও পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে কয়েকদিন উপস্থিত থাকতে পারেননি। পরবর্তীতে ছুটি মঞ্জুর করিয়েছেন তিনি।

বিনা অনুমতিতে ২৭দিন অনুপস্থিতির ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

ছাতক উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অভিজিৎ শর্মা জানান, এ ব্যাপারে পৃথক কয়েকটি অভিযোগ পেয়েছেন। জেলা সিভিল সার্জনের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ