Alexa ছোট যমুনা নদী দখল

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৬ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ১ ১৪২৬,   ১২ জ্বিলকদ ১৪৪০

ছোট যমুনা নদী দখল

নওগাঁ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৭:২৬ ১২ মার্চ ২০১৯   আপডেট: ১২:২৭ ১২ মার্চ ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নওগাঁর ৬টি নদীর মধ্যে উল্লেখ্য হচ্ছে ছোট যমুনা নদী, পূর্ণভবা নদী, ফক্কিন্নী নদী, তুলশীগঙ্গা নদী অন্যতম। শহরের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে এক সময়ের খরস্রোতা ছোট যমুনা। বর্তমানে দখল এবং দূষণের কবলে পড়েছে এই নদী। নদীর দুই পাশে নির্মাণ করা হচ্ছে বড় বড় ভবন ও শিল্প কারখানা। নদীগুলো খনন না করায় পলি জমে কমে গেছে নাব্যতা। কোথাও কোথাও নদীর ভেতরের দুই পাশের পার কেটে সমতল করে চাষ করা হচ্ছে ফসল। আবার কোথাও অবৈধ ভাবে তোলা হচ্ছে বালু। 

শহরের পার-নওগাঁর বাসিন্দা মিলন সরকার বলেন, শহরে কোনো ডাস্টবিন নেই। ময়লা আবর্জনা ফেলার বিকল্প কোনো ব্যবস্থা না থাকায় নদীতে ফেলতে হচ্ছে। বাধ্য হয়ে ময়লা আবর্জনা নদীতে ফেলছেন তারা। এর ফলে দূষণের ফলে নদী তীরবর্তী নাগরিকদের বসবাস করা দুরুহ হয়ে পড়েছে। 

নওগাঁ শহরের বাসিন্দা গৃহিণী মোছা. নুরজাহান আক্তার বলেন, ছোটবেলায় এই নদীতে অনেক গোসল করেছি। এই নদীর পানি দিয়ে রান্না-বান্নার কাজও করেছি কিন্তু বর্তমানে নদীর পানির গন্ধে নদীর তীরে এসে বসার জো নেই। দূষণ আর দখলের কবলে এক সময়ের যৌবন দীপ্ত নদীটি বর্তমানে মরতে বসেছে। কারো নজর নেই নদীটির দিকে। আমাদের সবার উচিত আগামীর সুন্দর প্রজন্ম ও সুস্থ্য পৃথিবীর জন্য এই নদীগুলোকে বাঁচানোর জোরালো পদক্ষেপ নেওয়া।

নওগাঁর সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন একুশে পরিষদের সভাপতি অ্যাড. ডিএম আব্দুল বারী বলেন, নদ আর নদীর দেশ আমাদের এই বাংলাদেশ। কিন্তু শিল্প কারখানা ও জনসংখ্যার বিস্ফোরণের কারণে নদীগুলো হারিয়ে যেতে বসেছে আবার অনেক নদী মানচিত্র থেকে ইতিমধ্যই বিলীন হয়ে গেছে। তেমনই একটি নদী আমাদের এই ছোট যমুনা নদী । সুন্দর বাংলাদেশের জন্য এই নদীগুলোকে পুনরায় জীবিত করা আমাদের জন্য ফরয হয়ে গেছে। কারণ এই নদীগুলো যদি এক সময় হারিয়ে যায় প্রাকৃতিক ভাবে বাংলাদেশও তখন হারিয়ে যাবে। বন্যার কবলে পড়বে দেশের অধিকাংশ নিম্নঅঞ্চলগুলো। আমাদের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য এই নদীগুলোকে বাঁচাতে হবে। কখনও কখনও এই নদীকে সার্বিকভাবে রক্ষার জন্য বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো ভুমিকা রেখেছেন। তাদেরও দাবি দেশের অন্যান্য নদীর মতো নওগাঁর ঐতিহ্য ছোট যমুনা নদীটিকে দূষণ আর দখলের হাত থেকে রক্ষা করা হোক।

ডিসি মিজানুর রহমান বলেন, ছোট যমুনা নদীসহ নওগাঁর সবগুলো নদীরক্ষার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। এরইমধ্যে ওয়াক ফর হেলদি লাইফ অ্যান্ড ক্লিন অ্যানভায়রনমেন্ট নামের একটি উদ্যোগ হাতে নেয়া হয়েছে। এর আগে আমরা তুলশীগঙ্গা নদীকে কচুরীপানা মুক্ত করে পানির স্বাভাবিক প্রবাহকে ফিরিয়ে এনেছি। পর্যায়ক্রমিক ভাবে আমাদের এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম