ছাড়াছাড়ি হলে কী করবেন?

ঢাকা, বুধবার   ১৯ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৫ ১৪২৬,   ১৪ শাওয়াল ১৪৪০

ছাড়াছাড়ি হলে কী করবেন?

অনন্যা চৈ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:০৯ ৬ জুন ২০১৯  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

একটি সম্পর্কে জোয়ার ভাটা থাকবেই। প্রতিটি সম্পর্ক প্রতিদিন এক রকম যায় না। কখনো একটি মন গড়ে আবার ভাঙে। মূলত সম্পর্ক থাকলে ওঠানামা থাকবে সেটাই খুব স্বাভাবিক। তবে একটি মধুর সম্পর্ক যখন ভাঙে তখন পুরো পৃথিবীটা যেন উলট পালট হয়ে যায়। এতে অনেকেই নিজেদের জীবনও নিস্তেজ করে ফেলে। আবার অনেকেই খারাপ পথ বেছে নেন।

তবে সম্পর্ক শেষ হলেই যে জীবনকে থামিয়ে দিতে হবে তা কিন্তু নয়। কথিত আছে, জীবন যতই ব্যথিত থাক, কর্মচক্র চলতে থাকবে। পাঠকদের নিশ্চয় কবর কবিতার গল্প মনে আছে? এক দাদাই শেষ পর্যন্ত অবশিষ্ট ছিলেন এতে। বউ, ছেলে, ছেলের বউ, নাতি, নাতনি সব কিছুকে হারিয়েও তিনি হারাননি। ভেঙে পড়েছিলেন ঠিকই তবে নিজেকে শেষ করে দেননি। 

দাদার সকলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল না ঠিকই, কিন্তু তাদের সঙ্গে তার হৃদ্যতার বন্ধন ছিল। তিনি চাইলে পারতেন, সকলের চলে যাওয়ায় নিজেকে শেষ করে দিতে। কিন্তু তিনি থেমে যাননি। আপন নিয়মে এগিয়ে গিয়েছেন। আমাদেরও উচিত সম্পর্কচ্ছেদ হলে অথবা কেউ হারিয়ে গেলে, নিজেকে শেষ না করে শেষ পর্যন্ত বেঁচে থাকা। একটি গভীর সম্পর্ক ব্রেকাপ হলে ভেঙে না পড়ে। এই জন্য বিশেষ কিছু নিয়ম মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন ভারতের কয়েকজন মনো-চিকিৎসক, যা প্রকাশ করেছে দেশটির অন্যতম শীর্ষ গণমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস।

চলুন দেখে নেয়া যাক, একটি সম্পর্কে ভেঙে গেলে কীভাবে এগিয়ে যাবেন:

আবেগ নিয়ন্ত্রণ

একটি সম্পর্কে ভালোবাসা শেষ হয়ে গেলেও অবশিষ্ট থাকে আবেগ। মূলত এই আবেগকে নিয়ন্ত্রণ করা খুবই কঠিন, তবে অসম্ভব কিছু নয়। এই সময় সকলকে মজবুত থাকা প্রয়োজন। এই প্রসঙ্গে ভারতের ভাটিয়া হাসপাতালের মনোচিকিৎসক ডা. লাকডাওলা বলেন, আপনার ছেড়ে যাওয়া সম্পর্কের মানুষের কথা মনে পড়লে বিষয়টি নিয়ে বিচলিত হবেন না। এ সময় বরং চিন্তা করুন কেন তার সঙ্গে আপনি সম্পর্কের ইতি টেনেছেন।

সামাজিক যোগাযোগ থেকে সব কিছু মুছে ফেলা

একটি সম্পর্ক থাকা অবস্থায় প্রেমিক-প্রেমিকা নিজেদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবার শীর্ষে অবস্থান করে। অর্থাৎ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবার চেয়ে বেশি চ্যাট করা হয় তার সঙ্গে। তাই কোনো সম্পর্ক নষ্ট বা শেষ হয়ে গেলে সকল মাধ্যম থেকে আপনি আপনার ছেড়ে যাওয়া সঙ্গীকে ব্লক করুন। এই প্রসঙ্গে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আমান বোসলে লাকডাওলা বলেন, সামাজিক যোগাযোগে ব্লকের মাধ্যমে আপনি মানসিকভাবে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারবেন যে, আপনার আর ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই।

নতুন কর্মকাণ্ডে যুক্ত হওয়া

ব্রেকাপের পর সবচেয়ে বেশি মনে পড়ে পুরনো সম্পর্কের স্মৃতিগুলো। তাই ব্রেকাপের পর আগের অভ্যাসগুলো ভুলে যেতে বা মনকে অন্যদিকে মোড় নিতে নিজেকে নতুন কাজে যুক্ত করান। এই প্রসঙ্গে ডা. আমান বোসলে বলেন, যখন আমাদের মস্তিষ্ক নতুন কোনো কিছুতে পরিচিত হয় তখন ব্রেকাপের মতো ঘটনার আবেগ মস্তিষ্কে তেমন প্রভাব ফেলতে পারে না।

বর্তমানকে প্রাধান্য দেয়া

ব্রেকাপের পর অতীত স্মৃতির প্রবাহ বন্ধ করা কঠিনই বটে। তাই অনেকের কাছে অতীতই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ থাকে। তবে জীবনকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে বর্তমানকে বেশি প্রাধান্য দেয়া উচিত। কারণ আপনার অতীত এখন কালো অধ্যায়ে বেষ্টিত। তাই তাকে নিয়ে পড়ে থাকলে সামনে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব না। এই প্রসঙ্গে মনো-চিকিৎসক নিতা ভি. শেঠি বলেন, একে অপরকে ভুলে যাওয়া খুব কঠিন কাজ। ব্রেকাপের পর বাস্তবতা ও ঘটনার ওপর আলোকপাত করুন, যাতে করে অতীতকে ভুলতে পারেন।

পুরনো সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা না করা

অনেকেই আছেন, সম্পর্ক শেষ হয়ে গেলেও পুরনো সম্পর্ককে ভুলতে না পেরে তার বিষয়ে আলাপ করতে থাকে। তবে আপনার সাবেক সঙ্গীকে নিয়ে সব-ধরনের আলোচনা বন্ধ করুন। তা না হলে সামনের পথ পাড়ি দেয়া আপনার জন্য কঠিন হয়ে পড়বে। ডা. আমান বোসলে বলেন, ব্রেকাপ হওয়া মানুষগুলো মনোযোগ আকর্ষণের জন্য তাদের ভালো-মন্দ বিষয়ে আলোচনা করতে পছন্দ করেন। আপনি আপনার সাবেক সঙ্গীকে নিয়ে যত বেশি আলোচনা করবেন, তাকে ভোলা আপনার জন্য ততটাই কঠিন হয়ে যাবে।

নিজেকে ছড়িয়ে ফেলা

ব্রেকাপের পর নিজেকে বন্দী না রেখে বরং বিক্ষিপ্ত করুন। অর্থাৎ বিভিন্ন মানুষের মধ্যে বিশেষ করে, বন্ধু, পরিবার ও অন্যান্য ঘনিষ্টদের বেশি বেশি সময় দিন। তাতে আপনার মন মাইন্ড সব ফ্রেশ থাকবে। এই প্রসঙ্গে ডা. লাকডাওলা বলেন, আপনি যদি সাধারণ মানুষের মুখোমুখি নাও হতে চান তবে আপনার ঘনিষ্টদের সঙ্গে মেলামেশা করুন। এর ফলে আপনি বুঝতে পারবেন আসলেই কে বা কারা আপনাকে সত্যিকারেই ভালোবাসে।

অতীত নিয়ে গবেষণা বন্ধ করা

আগেই বলে, অতীতকে পুরোপুরি পরিহার করতে না পারলে গভীর সম্পর্কের কথা ভুলা আপনার জন্য কঠিন হয়ে পড়বে। তাই অতীতকে নিয়ে লেগে থাকা বন্ধ করতে হবে। ডা. লাকডাওলা বলেন, কিছু মানুষ এমন মনে করে যে তারা তাদের সাবেক সঙ্গীকে শেষ দিন পর্যন্ত ভালোবেসে যাবে, পড়ে রইবে। এর কোনো মানে নেই, আপনাকে বুঝতে হবে সামনের পথ পাড়ি দিতে আপনার পুরো একটি জীবন পড়ে রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ