চুরির অপবাদে ছয় ঘণ্টা শিকলবন্দী শিশু!

ঢাকা, সোমবার   ৩০ মার্চ ২০২০,   চৈত্র ১৭ ১৪২৬,   ০৬ শা'বান ১৪৪১

Akash

চুরির অপবাদে ছয় ঘণ্টা শিকলবন্দী শিশু!

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৩০ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে চুরির অপবাদ দিয়ে ১০ বছরের শিশু রিপন মৃধাকে ছয় ঘণ্টা শিকলবন্দী রাখার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার চরমোন্তাজ ইউপির স্লুইসবাজারের একটি চায়ের দোকান থেকে ওই শিশু শিকলমুক্ত হয়।

ভুক্তভোগী রিপন মৃধা চরমোন্তাজ স্লুইসবাজার আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দা রুবেল মৃধার ছেলে।

স্থানীয়রা বলেন, মঙ্গলবার দুপুর ১টায় চায়ের দোকানে চুরি সন্দেহে শিশু রিপনকে আটকে রাখেন দোকান মালিক বেল্লাল প্যাদা। পরে দোকানের পেছনে রিপনের পায়ে শিকলবন্দী করে রাখেন বেল্লাল। খবর পেয়ে সন্ধ্যা ৭টায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন স্থানীয় সংবাদকর্মীরা। বিষয়টি টের পেয়ে শিশুটিকে শিকলমুক্ত করে দেন বেল্লাল।

শিশু রিপন জানান, ৪০০ টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে চা দোকানদার বেল্লাল তাকে আটকে রাখেন। পরে চড়-থাপ্পড় ও কিলঘুষি দিয়ে পায়ে শিকল পরিয়ে দেন।

রিপনের মা জাহানারা বলেন, ছেলেকে মারধর করে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখার খবর শুনে দোকানে যাই। বিষয়টি সমাধানের প্রস্তাব দিয়ে রিপনকে ছেড়ে দেয়ার অনুরোধ করেন স্থানীয় মেম্বার। এতে রাজি হননি বেল্লাল। পরে আবারো ছেলেকে মারধরের খবর পেয়ে দোকানে গেলে গালিগালাজ করেন বেল্লাল।

চরমোন্তাজ ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হালেম খান বলেন, রিপনকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখার খবর শুনেছি। তবে বেল্লাল বিষয়টি অস্বীকার করছে।

অভিযুক্ত চায়ের দোকানদার বেল্লাল প্যাদা বলেন, চাকু দিয়ে দোকানের পেছনের টিন কেটে হাজার খানিক টাকা নিয়েছে রিপন। এছাড়া দোকানের কিছু বিস্কুট খেয়েছে সে।

তিনি বলেন, পালিয়ে যাবে বলেই শিকলবন্দী করে রাখছিলাম। তবে চা জিলাপি খেতে দিয়েছি। পরে ছেড়ে দিয়ে ক্ষমাও চেয়েছি।

চরমোন্তাজ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আনিসুর রহমান বলেন, ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে। অভিযোগের সত্যতা পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ