চীনে বন্যপ্রাণী ভক্ষণে নিষেধাজ্ঞা জারি

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৪ ১৪২৬,   ১৩ শা'বান ১৪৪১

Akash

চীনে বন্যপ্রাণী ভক্ষণে নিষেধাজ্ঞা জারি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:০০ ২২ মার্চ ২০২০   আপডেট: ২১:০২ ২২ মার্চ ২০২০

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে জনশূন্য সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা মার্কেটের রক্ষী

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে জনশূন্য সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা মার্কেটের রক্ষী

করোনাভাইরাস থেকে মুক্তির পথে থাকা চীন বন্যপ্রাণী ভক্ষণ ও পালনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। কারণ দেশটির উহান শহরের প্রাণীর বাজার থেকে করোনাভাইরাস ছড়ায় বলে ধারণা করা হচ্ছে।-খবর সিএনএনের।

সংবাদমাধ্যমটি জানায়, যদিও নির্দিষ্ট প্রাণী থেকে ভাইরাসটি ছড়ার কোনো নিশ্চিত তথ্য নেই। তবে বাদুড়, সাপ ও বনরুই থেকে ভাইরাসটি ছড়াতে পারে। অন্য বিপর্যয় ঠেকাতে লাভজনক বন্য শিল্প নিয়ন্ত্রণে আনা প্রয়োজন বলে মনে করছে চায়না।

ফেব্রুয়ারির শেষে দিকে বাস্তুসংস্থানসংক্রান্ত, বৈজ্ঞানিক এবং সামাজিক মূল্যবোধের গুরুত্বের জন্য বন্যপ্রাণী ভক্ষণের ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞা করা হয়। যা এ বছরের শেষে আইন করা হবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

কিন্তু বন্যপ্রাণী ভক্ষণের ব্যবসাটি বন্ধ করা কঠিন। চায়নার মূল সংস্কৃতির সঙ্গে বন্যপ্রাণীর গভীর সম্পর্ক রয়েছে। এটি শুধু খাবারের জন্য নয়, ঐতিহ্যবাহী ওষুধ, কাপড়, অলংকার ও পোষা প্রাণী হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

চাইনিজ সরকার শুধু এবার বন্যপ্রাণী রক্ষায় চেষ্টা করেনি। ২০০৩ সালে বেজি শ্রেণির প্রাণীদের ধরা নিষেধ করে দেশটির কর্তৃপক্ষ। কারণ সারস (SARS) নামের একটি ভাইরাস ছড়ানোর বিষয়টি ওই শ্রেণির মাঝে ধরা পড়ে। এরপর দেশটির গুয়াংজুতে সাপ বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়। কিন্তু আজকের চায়নার বিভিন্ন প্রদেশে প্রাণী ভক্ষণ প্রিয় খাবার হিসেবে বিবেচিত।

গণস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেন, বন্যপ্রাণী নিষিদ্ধ করা প্রথম গুরুত্বপূর্ণ ধাপ। কিন্তু ওষুধ হিসেবে বন্যপ্রাণী ব্যবহার এবং চায়নার সংস্কৃতিতে পরিবর্তন আনতে হবে। এতে বন্যপ্রাণী ধরা বন্ধ করতে হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ