.ঢাকা, বুধবার   ২৭ মার্চ ২০১৯,   চৈত্র ১২ ১৪২৫,   ২০ রজব ১৪৪০

চিকেন পক্সে যেসব নিয়ম মানা জরুরি

স্বাস্হ্য ও চিকিৎসা ডেক্স ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:২৭ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

আবহাওয়ার পরিবর্তনের ফলে বছরের যেকোনো সময়ে যে কেউ-ই চিকেন পক্সে আক্রান্ত হতে পারেন।

শীতের শেষে ঋতুরাজ বসন্তের আগমন মানেই আবহাওয়া পরিবর্তন। এ সময়েই সব রকম অসুখের সঙ্গে চিকেন পক্সের হানা দেয়। 

ভ্যারিসেল্লা ভাইরাসের আক্রমণে ঘটা এই অসুখ অত্যন্ত সংক্রামক। তাই এই রোগে আক্রান্ত হলে রোগীকে বেশ কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে হয়। 

বায়ুবাহিত অসুখ হওয়ায় এই রোগকে আটকানোর তেমন কোনো উপায় থাকে না ঠিকই, তবে আক্রান্ত রোগী থেকে যতটা সম্ভব দূরে থেকে ও এই সময়টা বাইরে বেরলে মাস্ক ব্যবহার করে অসুখকে কিছুটা রুখে দেয়া যায়।

মেডিসিন বিশেষজ্ঞ আব্দুল্লাহ’র মতে, এই অসুখ থেকে বাঁচতে ভালো না হওয়া পর্যন্ত রোগীকে হাওয়া-বাতাস চলাচল করে এমন পরিষ্কার ঘরে রাখুন এবং তার ব্যবহৃত সব জিনিসপত্রও আলাদা করুন। রোগীর শ্বাস, হাঁচি-কাশি থেকে ছড়ায় এই অসুখ। সারা শরীরে জল-সমেত ফোস্কা দেখলে সচেতন হন। এই অবস্থায় বাইরে বের হওয়া একেবারেই উচিত নয়।

এই অসুখের সঙ্গে লড়াই করার ক্ষমতা বাড়াতে ও রোগ প্রতিরোধ করতে প্রতিদিন গোসলের পানিতে নিমপাতা ফেলে এবং গায়ে হলুদ মেখে গোসল করুন। খাবার পাত্রে তেল-মশলা ও ফ্যাট-জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলুন। বরং তার পরিবর্তে তেতো রাখুন বেশি করে, এতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে।

তবে এই অসুখ হলে বেশ কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে হয়। রোগীর যত্নেও সেই ছাপ না থাকলে তা সারতে যেমন দেরি হয়, তেমনই ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কাও থাকে। দেখে নিন যেসব সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে:

> প্রথমেই মনে রাখতে হবে এই অসুখ কিন্তু কারোর ক্ষেত্রেই পুরোপুরি সারে না। শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে একে রুখে সুস্থ হওয়া যায়। তবে এই রোগ হলে বেশ কিছু নিয়ম মেনে চললে সহজেই সুস্থ হতে পারবেন।

> রোগীকে কখনো নোংরা বা স্যাঁতসেঁতে ঘরে রাখবেন না। বরং তার ঘরে যেন যথেষ্ট আলো-বাতাস চলাচল করে ও পরিষ্কার হয়।

এই সময় নিজের ইচ্ছামতো যখন তখন ওষুধ কিনে খাবেন না। শরীরে জ্বরের সঙ্গে বেদনাদায়ক ফোস্কা থাকায় প্যারাসিটামল জাতীয় ওষুধ দিন।

> ত্বকের প্রদাহ কমাতে ক্যালামাইন লোশন লাগান। কখনো রোগীর শারীরিক অবস্থা বুঝে কিছু অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ খেতে হতে পারে। তবে যেকোনো ওষুধ খাওয়ার আগে চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করবেন।

> ​রোগীর হাতের নখ কেটে দিন। ঘুমের মধ্যে বা অসাবধানে ফোস্কায় নখ লেগে গেলে তা থেকে রক্তপাত হতে পারে। সংক্রমণও ছড়াবে এমন হলে। প্রদাহ শুকানোর সময় ফোস্কার চামড়া ওঠার সময় সেই স্থান চুলকায়। কিন্তু নখ বা ধারাল-ভোঁতা কিছু দিয়েই চুলকানো বা খোঁটা যাবে না কখনোই। বরং আরাম পেতে ক্যালামাইন লোশন ও অ্যান্টি অ্যালার্জিক ওষুধ খান।

> বাড়িতে শিশুদের অবশ্যই পক্স থেকে বাঁচার ভ্যাক্সিন নেয়াতে হবে। বড়রাও যারা এই অসুখের শিকার হননি তারা ভ্যাক্সিন নিন।

খাবারদাবার খুব হালকা রাখুন, তেল-মশলা এড়িয়ে তেতো খান বেশি করে।

> বৃদ্ধদের ক্ষেত্রে এই অসুখ হলে অনেক সময় তা থেকে নিউমোনিয়া বা এনসেফেলাইটিস হতে পারে। তাই সাবধান হোন ও রোগ কমানোর জন্য চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

> ক্যান্সার আক্রান্ত রোগী, গর্ভবতী বা ক্রনিক ফুসফুস ও চর্মরোগে আক্রান্তদের চিকেন পক্স হলে অ্যাসাইক্লোভির জাতীয় অ্যান্টি ভাইরাল ওষুধ দেয়া হয়। এতে পক্সের কষ্ট অনেকটা তাড়াতাড়ি কমিয়ে দেয়া যায়। তবে এই ওষুধ খাওয়ার আগেও অবশ্যই সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে