‘চিকিৎসকের পায়ে ধরেও অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে বাঁচাতে পারিনি’
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=187232 LIMIT 1

ঢাকা, শনিবার   ০৮ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২৪ ১৪২৭,   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

‘চিকিৎসকের পায়ে ধরেও অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে বাঁচাতে পারিনি’

চট্টগ্রাম মহানগর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৪:১৪ ১২ জুন ২০২০  

ছেলেমেয়ের সঙ্গে তৌহিদুল আনোয়ার

ছেলেমেয়ের সঙ্গে তৌহিদুল আনোয়ার

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার ফৌজদারহাটের বাসিন্দা তৌহিদুল আনোয়ার। মঙ্গলবার রাতে শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে নিয়ে দুই হাসপাতাল ঘুরে, চিকিৎসকের পায়ে ধরেও পাননি আইসিইউ। শেষ রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয় তার স্ত্রীর।

তৌহিদুল আনোয়ার বলেন, পাঁচদিন ধরে শ্বাসকষ্টে ভুগছিল আমার স্ত্রী। মঙ্গলবার সকালে তাকে মা ও শিশু হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলাম। সেখানে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষাও করা হয়। প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট থাকায় তাকে আইসিইউতে রাখতে চিকিৎসকের পায়ে ধরেছি। বলেছি এক ঘণ্টার জন্য হলেও আইসিইউতে রাখতে। তারা আইসিইউ না দিয়ে বিকেলে চমেক হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেন।

তিনি আরো বলেন, চমেক হাসপাতালে নেয়ার পর জরুরি বিভাগ ও ৩০ নম্বর ওয়ার্ড ঘুরে আমার স্ত্রীকে করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে অক্সিজেন সাপোর্ট দেয়া হলেও পাইনি আইসিইউ। রাত পৌনে চারটার দিকে তার মৃত্যু হয়।

তৌহিদুল আরো বলেন, আগের দুই সন্তান জন্মের সময়ও আমার স্ত্রী শ্বাসকষ্ট হয়েছিল। তারা অকালে মাকে হারাল। আমি চাই না তাদের মতো আর কোনো সন্তান মা হারা হোক।

চমেক হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. আফতাবুল ইসলাম বলেন, প্রতিটি রোগীর মৃত্যুই আমাদের জন্য বেদনার। আমরা চাই না বিনা চিকিৎসায় কারো মৃত্যু হোক। আইসিইউ খালি না থাকায় চাইলেও অনেককে আইসিইউ সুবিধা দেয়া যাচ্ছে না। আমাদের আরো আইসিইউ প্রয়োজন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর