Alexa চালকদের সচেতন করতে পুলিশের পাশে শিক্ষার্থীরাও

ঢাকা, বুধবার   ১১ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২৬ ১৪২৬,   ১৩ রবিউস সানি ১৪৪১

চালকদের সচেতন করতে পুলিশের পাশে শিক্ষার্থীরাও

সাইফুল ইসলাম ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৩৮ ২১ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ২১:৩১ ২১ নভেম্বর ২০১৯

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ট্রাফিক সচেতনতা সপ্তাহে নতুন সড়ক আইন কার্যকর করতে ও সচেতনতা বাড়াতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের সঙ্গে রাস্তায় থাকবেন শিক্ষার্থীরাও। বৃহস্পতিবার ২১ নভেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট দুই সপ্তাহ চলবে ট্রাফিক সচেতনতা সপ্তাহ।

ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের যুগ্ম কমিশনার মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, নতুন সড়ক আইন কার্যকর করতে সচেতনতা বাড়াতে চেষ্টা করছি। এ আইনের জন্য শিক্ষার্থীরা যেহেতু আন্দোলন করেছে, তাই তাদেরকেও পাশে রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এই কর্মসূচিতে ট্রাফিক বিভাগের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করবে তারা। 

গত ২২ অক্টোবর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নে ট্রাফিক সচেতনতা সপ্তাহের এই কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উদ্যোগে নেয়া এ কর্মসূচিতে ট্রাফিক বিভাগের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করবে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। এছাড়া কর্মসূচিতে যুক্ত করা হবে রোভার স্কাউট, গার্লস গাইড ও বিএনসিসিসহ বিভিন্ন স্কুল-কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীদের।

এ বিষয়ে গত ১৩ নভেম্বর সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সভাকক্ষে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধিতে করণীয় বিষয়ক একটি বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে জানানো হয়, নিরাপদ সড়কের জন্য সচেতনতা তৈরিতে রাজধানীর স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের ট্রাফিক বিভাগের সঙ্গে যুক্ত করা হবে।

এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের উপসচিব ড. মো. মোকছেদ আলী বলেন, জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে রাজধানীর কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তালিকা দেয়া হয়েছে। বার্ষিক পরীক্ষা শেষে তাদের যুক্ত করা হবে। যাদের পরীক্ষা শেষ হয়ে গেছে তারা এই কার্যক্রমের সঙ্গে শুরু থেকেই যুক্ত থাকতে পারবে। 

এদিকে সড়ক পরিবহন আইনের অসঙ্গতি দূর করার অঙ্গীকার জানিয়ে বৃহস্পতিবার ট্রাফিক সচেতনতা সপ্তাহের উদ্বোধন করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, চালকদের লাইসেন্স প্রদানে সিস্টেমগত জটিলতা ছিল, বিধায় আইন প্রয়োগ শিথিলতার সময় বাড়ানো হয়েছে। সড়ক সবার জন্য নিরাপদ করতে, শৃঙ্খলা ফেরাতে, আইনের বাস্তবায়ন করতেই হবে। কারণ ট্রাফিক শৃঙ্খলা সভ্য জাতির প্রতীক। একটি প্রাণও যেনো ঝরে না যায় সে ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। 

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বেপরোয়া বাসের চাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে দেশব্যাপী নিরাপদ সড়ক আন্দোলন জোরালো হয়। শিক্ষার্থীদের ওই আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে সরকার সড়ক নিরাপদ করতে ২০১৮ সালের সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর করতে গেজেট প্রকাশ করে। 

গেজেট অনুযায়ী সড়ক পরিবহন আইনটি কার্যকর হয় ১ নভেম্বর থেকে। ১৭ দিন প্রচার প্রচারণার পর সোমবার থেকে আইনটি প্রয়োগ শুরু করে পরিবহন নিয়ন্ত্রণ সংস্থা (বিআরটিএ)।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ