চার হাজার ৪শ’বেল পাটের লক্ষ্য

চাঁদপুর, প্রতিনিধিডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম
ছবি: সংগৃহীত

চাঁদপুরে এবছর ৪৪০০ বেল পাট উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে কৃষি বিভাগ। দেশের অন্যতম প্রধান নদীবিধৌত কৃষিভিত্তিক অঞ্চল চাঁদপুর। কয়েক দশক থেকেই কৃষিপণ্য উৎপাদনে চাঁদপুরের সুখ্যাতি রয়েছে। মেঘনা,পদ্মা ,ডাকাতিয়া ও মেঘনা ধনাগোদা নদীবেষ্টিত এখানকার মাটি ও আবহাওয়া কৃষি উপযোগী। যেখানে সব রকমের কৃষিপণ্য উৎপাদিত হয়ে থাকে। এর মধ্যে পাট অন্যতম।

ষাটের দশকের শুরুতে এখানে ডব্লিউ রহমান জুট মিল, স্টার আল কায়েদ ও হামিদিয়া জুট মিল গড়ে উঠেছিল। সে সুবাধেই চাঁদপুরে পাটের চাষ হয়ে থাকে।

চাঁদপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, ৮ উপজেলায় এ বছর (২০১৭-২০১৮ খরিপ-১) ৪৪০১ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের পাট চাষাবাদ হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে, ৪৩৩১ বেল। সরকারি ভাষায় ৫ মণকে বলা হয় ১ বেল। সে হিসেবে এবার ২ লাখ ১৪ হাজার ৬৫৫ মণ পাট উৎপন্ন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে মতে, চাঁদপুরে দেশি পাটের চাষাবাদ ২ হাজার ২৭৬ হেক্টরে, যার বিপরীতে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ হয়েছে ২১ হাজার ৮৮ বেল, তোষা পাটের চাষাবাদ হয়েছে ১ হাজার ৩৭১ হেক্টরে, ১৫ হাজার ৪২৮ বেল। কেনাফ জাতের চাষাবাদ হয়েছে ৬২০ হেক্টরে লক্ষ্যমাত্রা ৫৩৩৩ বেল আর মেস্তা পাট চাষাবাদ হয়েছে ১৪০ হেক্টরে লক্ষ্যমাত্রা ১১৮২ বেল।

চাঁদপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপসহকারী কৃষিবিদ আবদুল মান্নান জানান, এ বছর চাঁদপুরের ৮ উপজেলার মধ্যে চাঁদপুর সদরে ১ হাজার ৬৯৯ হেক্টর জমিতে দেশি, তোষা, মেস্তা ও কেনাফ জাতের পাট চাষাবাদ হয়েছে এবং উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ১৫ হাজার ৯৭৫ বেল পাট। এ বছর লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে বলে আশাবাদী। কারণ এখন পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে রয়েছে। আর কৃষক এখন পাটের দাম ভালো পাচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আজ/এমআরকে