চান্দিনায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার গ্যাস লাইন উচ্ছেদ 

ঢাকা, সোমবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ১৩ ১৪২৭,   ১০ সফর ১৪৪২

চান্দিনায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার গ্যাস লাইন উচ্ছেদ 

কুমিল্লা প্রতিনিধি     ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:১৩ ৬ আগস্ট ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

কুমিল্লার চান্দিনায় আবারো অবৈধ গ্যাস লাইন বিচ্ছিন্ন করা শুরু হয়েছে। টানা ৩ দিনের উচ্ছেদ অভিযানের দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার অবৈধ গ্যাস লাইন উচ্ছেদ করা হয়। এ অভিযান চলবে শুক্রবার পর্যন্ত।

এর আগে বুধবার সকাল থেকে উপজেলার কুটুম্বপুর এলাকা থেকে অবৈধ ওই গ্যাস লাইন বিচ্ছিন্ন কার্যক্রম শুরু করে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড। দ্বিতীয় দিনের অভিযানে কুটুম্বপুর থেকে মুরাদপুর পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার অবৈধ ওই গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। 

কুমিল্লা ডিসি কার্যালয়ের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জনি রায় এর নেতৃত্বে ওই উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়। 

এ সময় বাখরাবাদ গ্যাস ডিসট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের ডিজিএম (টেকনিক্যাল) মুরতুজা রহমান, ডিজিএম (ভিজিলেন্স) আজহারুল ইসলাম, র‌্যাব ও পুলিশের পৃথক ২টি টিম উপস্থিত থেকে ওই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়। 

এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জনি রায় জানান, বৃহস্পতিবার মূল সংযোগ স্থল থেকে উচ্ছেদ অভিযান শুরু করা হয়েছে। প্রথম দিনেই প্রায় দেড় কিলোমিটার ও দ্বিতীয় দিনে প্রায় দুই কিলোমিটার অবৈধ গ্যাস লাইন উচ্ছেদ করা হয়েছে।  শুক্রবারও  অভিযান অব্যাহত থাকবে। যেসব গ্রামে অবৈধ ওই গ্যাস লাইন রয়েছে পর্যায়ক্রম সবগুলোই উচ্ছেদ করা হবে। 

জানা যায়, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক সংলগ্ন চান্দিনা উপজেলা মাধাইয়া ইউপির কুটুম্বপুর গ্রামে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড এর একটি ট্রান্সমিশন উপকেন্দ্র রয়েছে। ওই ট্রান্সমিশন কেন্দ্র থেকে ৬ ইঞ্চি পাইপে যে লাইনে গ্যাস বিতরণ করা হয় ওই ৬ ইঞ্চি পাইপ ছিদ্র করে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে চান্দিনার মুরাদপুর গ্রামের শাহজাহান নামের এক প্রতারক। ওই চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে এখন যুবক ও ছাত্র সংগঠনের অনেক নেতা-কর্মী। 

২০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকায় অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রদান করে যাচ্ছে তারা। ওই গ্যাস লাইন ছড়িয়ে পড়েছে চান্দিনা মাধাইয়া, কুটুম্বপুর, নাওতলা, মুরাদপুরসহ দেবীদ্বার উপজেলার বেশ কয়েকটি গ্রামে। 

২০১৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৫টি অভিযানে অবৈধ ওই গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার মাত্র ২/১ মাসের মধ্যে আবারো সংযোগ চালু করে দেয় ওই প্রতারক চক্র। 

বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড এর ডিজিএম (টেকনিক্যাল) মুরতুজা রহমান খান জানান, অন্যান্য অভিযানে মূল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হতো। এবার টানা ৩দিন উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে গ্রামের ভিতরের সংযোগ লাইনও উচ্ছেদ করা হবে।  

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ