Alexa চট্টগ্রাম বন্দরে সর্বোচ্চ সতর্কতা অ্যালার্ট-৪ জারি

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২১ নভেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ৬ ১৪২৬,   ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

চট্টগ্রাম বন্দরে সর্বোচ্চ সতর্কতা অ্যালার্ট-৪ জারি

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৪৬ ৯ নভেম্বর ২০১৯  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এর প্রভাবে সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে শনিবার সকালে চট্টগ্রাম বন্দর জেটি থেকে সব জাহাজ সাগরে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার রাতে জাহাজ থেকে পণ্য ওঠানো-নামানো বন্ধ করে দেয়া হয়। এখন পণ্য খালাসও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বন্দরের সব কার্যক্রম বন্ধ করে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

আবহাওয়া অধিদফতর সকালে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরকে ৯ নম্বর মহা বিপৎসংকেত দেখাতে বলেছে। এরপরই চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে নিজস্ব সর্বোচ্চ সতর্কতা সংকেত ‘অ্যালার্ট-৪’ জারি করা হয়েছে। এই সতর্কতা জারির পর বন্দরে সর্বোচ্চ সতর্কতা নেয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম বন্দর সচিব ওমর ফারুক জানান, বন্দরে পণ্য ওঠানো-নামানো, খালাসসহ সব কার্যক্রম এখন বন্ধ আছে। সব জাহাজ সাগরে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে যাতে জেটি ও যন্ত্রপাতি ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে জন্য জাহাজ সাগরে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

১৯৯২ সালে বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রণীত ঘূর্ণিঝড়-দুর্যোগ প্রস্তুতি এবং ঘূর্ণিঝড়-পরবর্তী পুনর্বাসন পরিকল্পনা অনুযায়ী, আবহাওয়া অধিদফতরের সংকেতের ভিত্তিতে চার ধরনের সতর্কতা জারি করে বন্দর। আবহাওয়া অধিদফতর ৩ নম্বর সংকেত জারি করলে বন্দর প্রথম পর্যায়ের সতর্কতা বা ‘অ্যালার্ট-১’ জারি করে। ৪ নম্বর সংকেতের জন্য বন্দর অ্যালার্ট-২ জারি করে। এছাড়া বিপদ সংকেত ৫, ৬ ও ৭ নম্বরের জন্য ‘অ্যালার্ট-৩’ জারি করা হয়। মহাবিপদ সংকেত ৮, ৯ ও ১০ হলে বন্দরেও সর্বোচ্চ সতর্কতা বা ‘অ্যালার্ট-৪’ জারি করা হয়। তখন বন্দরের সব কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়। জেটি, যন্ত্রপাতি ও পণ্যের সুরক্ষার জন্য ১৯৯২ সাল থেকে এই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

সকালে কন্টেইনার ও পণ্য ওঠানো-নামানোর সব যন্ত্রপাতি নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নেয়া হয়েছে। খালি কন্টেইনারের দরজা বন্ধ করে রাখা হয়েছে। জেটির আশপাশ এলাকা থেকে কন্টেইনার সরিয়ে বন্দর ইয়ার্ডে রাখা হয়েছে।

বন্দরে সিসিটি ও এনসিটি টার্মিনাল পরিচালনাকারী সাইফ পাওয়ার টেক লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন তানভীর হোসেন জানান, এখন জেটিতে কোনো জাহাজ নেই। জেটি, যন্ত্রপাতি ও কন্টেইনার নিরাপদ রাখতে সব ব্যবস্থাই নেয়া হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম