গ্রুপিংয়ে দুর্বল বিএনপি, আওয়ামী লীগের জয় নিশ্চিত

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ১১ ১৪২৬,   ২০ শাওয়াল ১৪৪০

জামালপুর-৩

গ্রুপিংয়ে দুর্বল বিএনপি, আওয়ামী লীগের জয় নিশ্চিত

 প্রকাশিত: ১৯:১২ ১৯ জুলাই ২০১৮   আপডেট: ১৯:১২ ১৯ জুলাই ২০১৮

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

জামালপুর-৩ (মাদারগঞ্জ-মেলান্দহ) আসনে গ্রুপিংয়ে দুর্বল বিএনপির সামনে আলোর দিশা নেই। স্রোতের টানে ভেসে চলছে ভাটির দিকে। এ আসনে শুধুই অন্ধকার। পক্ষান্তরে আওয়ামী লীগের অবস্থান উর্ধ্বগতিতে।

এদিকে এ আসনে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের মনোনয়ন নিশ্চিত। তবে বিএনপির একাধিক প্রার্থী থাকায় মোস্তাফিজুর রহমান বাবুলকে মনোনয়ন নিতে বেগ পেতে হবে। এছাড়া অন্যান্য দলের প্রার্থীদের তোমন ভূমিকা নেই।

এ আসনে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী বর্তমান এমপি, বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম।

মির্জা আজম বলেন, ৯১ সালে নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর শেখ হাসিনার নির্দেশ অনুযায়ী জনগণকে মনিব মনে করে কাজ করি। দলে আমার এলাকায় কোন্দল গ্রুপিং নেই। আগামী নির্বাচনে বিএনপির সঙ্গে নয়, প্রতিযোগিতা হবে কে কত বেশী নৌকায় ভোট দেবে তা নিয়ে।

মেলান্দহ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক সুজা বলেন, মেলান্দহ উপজেলার সর্বস্তরেই আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কাঠামো অত্যন্ত সুসংগঠিত।

মাদারগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জীবন কৃষ্ণ শাহা ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ওবায়দুর রহমান বেলাল জানালেন, এ আসনের একমাত্র এমপি প্রার্র্থী অত্যন্ত জনপ্রিয় নেতা বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি। আসন্ন নির্বাচনে তার বিজয়ী নিশ্চিত।

মেলান্দহ-মাদারগঞ্জ আসনে বিএনপিতে বরাবরই দুটি গ্রুপ বিদ্যমান থাকায় এখানে বিএনপির প্রার্থী কখনোই জয়ের মুখ দেখেননি। এ আসনে বিএনপির দলীয় কোন্দলের অন্ত নেই। কেন্দ্রীয় নেতা মোস্তাফিজুর রহমান বাবুলের নিজস্ব লোক দিয়ে কমিটি গঠনের ফলে দিন দিন কলহ আরো প্রকট আকার ধারণ করেছে। সহসাই বিএনপির এ গ্রুপিং কাটিয়ে উঠা সম্ভব নয়। এ আসনে বিএনপির বিজয় আলাদীনের আশ্চর্য প্রদীপের মতো কল্পনাই মাত্র। তাছাড়া কেন্দ্রে মোস্তাফিজুর রহমান বাবুলের অবস্থান শক্ত। সে সুবাদে তিনি মনোনয়ন পেলেও এ আসনটি উদ্ধার করা কঠিন।

এছাড়াও এ আসনে মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল এছাড়াও বিএনপির প্রার্থী হিসাবে মাঠে রয়েছেন কেন্দ্রীয় যুবদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক গোলাম রব্বানী ও মাদারগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফায়জুল ইসলাম লাঞ্জু।

মোস্তাফিজুর রহমান বাবুলের দৃঢ় বিশ্বাস, ভোটাররা ভোট দিতে পারলে তিনি বিজয়ী হবেন।  

উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এম. রফিকুল ইসলাম রহিম জানান, যোগ্য নেতাকর্মীদের কমিটিতে অন্তর্ভূক্ত করে দলকে অত্যন্ত শক্তিশালী করা হয়েছে। যারা দুর্দিনে অত্যাচার নির্যাতনের শিকার হয়েছেন- তাদেরই মূল্যায়ন করা হচ্ছে। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে এ আসনে বিএনপি’র জয় হবে।

অপর সম্ভাব্য প্রার্থী গোলাম রব্বানী ছাত্র জীবন থেকে শুরু করে বছরের পর বছর পার করেছেন বিএনপির রাজনীতিতে। মেলান্দহ-মাদারগঞ্জ আসনে বিএনপির ভোট অধিক হলেও যোগ্য প্রার্থী না দেয়ায় বার বার আসনটি বিএনপির হাতছাড়া হয় বলে গোলাম রব্বানীর অভিযোগ। আসন্ন নির্বাচনে এ আসনটি উদ্ধারে প্রার্থী নির্বাচনে বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া এবার সঠিক সিদ্ধান্ত নিবেন না বলে তার বিশ্বাস।

মাদারগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফায়েজুল ইসলাম লাঞ্জু জানান, এ আসন থেকে আমিও মনোনয়ন চাইবো। যতদুর সম্ভব দলকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি।

ডেইলি বাংলাদেশ/আজ