Alexa গুগল হেডকোয়ার্টারে ভাড়া করা ছাগল ঘাস কাটে!

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২২ অক্টোবর ২০১৯,   কার্তিক ৬ ১৪২৬,   ২২ সফর ১৪৪১

Akash

গুগল হেডকোয়ার্টারে ভাড়া করা ছাগল ঘাস কাটে!

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:০৯ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৪:১৩ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ এবং জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগল। এটি পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি ভিজিটেড ওয়েবসাইট। সারা দুনিয়া জুড়ে কোটি কোটি মানুষ কোন কিছু খোঁজার প্রয়োজন হলেই গুগলে ঢুঁ মারেন। 

ফোর্বসের এক হিসাবে এর সত্যতা মেলে। তার বলছে, গুগল প্রতি সেকেন্ডে গড়ে ৪০ হাজার অনুসন্ধানের জবাব দেয়। যার মানে প্রতিদিন সাড়ে তিন বিলিয়ন অনুসন্ধানে গুগলের দ্বারস্থ হয় মানুষ।

মজার ব্যাপার হচ্ছে, সার্চ ইঞ্জিনের বাইরে গুগলের এমন অনেক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা অনেকটা হাস্যকর মনে হতে পারে। যেমন ধরুন, ছাগল দিয়ে ঘাস কাটানো।

গুগলের হেডকোয়ার্টার সিলিকন ভ্যালিতে অবস্থিত। এর নাম 'গুগলপ্লেক্স'। গুগলের হেডকোয়ার্টারটি বিশাল এবং এর ভেতরে অনেক সবুজ জায়গা রয়েছে। এখানে ঘাস কাটার জন্য গুগল বাইরে থেকে ছাগল ভাড়া করে। সেখানে ২০০ ছাগল এলোমেলো ঘুরে বেড়াচ্ছে আর লনের ঘাস খেয়ে ঠিকঠাক রাখছে। গুগল সব সময় যে সবুজ উদ্যোগ সমর্থন করে, এটা তারই প্রতিফলন। 

শুধু তা-ই নয়, গুগলের হেডকোয়ার্টারে জাতীয় ডাইনোসরের একটি বিশাল মূর্তি আছে। যার উপর প্রায়ই অসংখ্য প্লাস্টিকের তৈরি গোলাপি ফ্ল্যামিঙ্গো বসে থাকতে দেখা যায়। গুজব রয়েছে যে, এটা হচ্ছে কর্মচারীদের প্রতি এক সতর্কবার্তা যেন তারা কখনো গুগলকে বিলুপ্ত হয়ে যেতে না দেন।

ফোবর্স বলছে, গুগলের জনক সের্গেই ব্রিন প্রথম দিকেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে, গুগলের অফিস কখনোই খাবার প্রাপ্তির স্থান থেকে ৬০ মিটারের বেশি দূরত্বে হবে না। গুজব আছে যে, তখন কোম্পানির সবচেয়ে জনপ্রিয় খাবার ছিল 'সুইডিশ ফিশ', মিষ্টি জাতীয় একটি খাবার।

তবে সময়ের পরিক্রমায় এখন গুগলের কর্মীদের জন্য নানা ধরণের মাংস আর ভালো মানের কফির ব্যবস্থা রয়েছে। গুগল হচ্ছে প্রথম বড় প্রযুক্তি কোম্পানি যারা তাদের কর্মচারীদের বিনামূল্যে খাবার পরিবেশন করে।

এছাড়া গুগলে যারা কাজ করেন, তারা সবাই নিজের কুকুর সঙ্গে করে নিয়ে আসতে পারেন। তবে এটা প্রমাণ করতে হবে যে, কুকুরগুলো ঘরের ভেতরে বসবাসের জন্য প্রশিক্ষিত।

প্রসঙ্গত, গেল শুক্রবার গুগলের বয়স ২১ বছর হয়েছে। এটি অবশ্য এখন শুধু একটি সার্চ ইঞ্জিন নয়, এক বিশাল প্রযুক্তি কোম্পানিতে পরিণত হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর