Exim Bank
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৯ জুন, ২০১৮
Advertisement

প্রাইভেট কারে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা, আটক ১ (ভিডিও)

 নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৩৯, ১০ জুন ২০১৮

আপডেট: ২৩:৪৫, ১০ জুন ২০১৮

১৮৪৪৯ বার পঠিত

ছবি: ভিডিও থেকে সংগৃহীত

ছবি: ভিডিও থেকে সংগৃহীত

প্রাইভেট কারে তুলে এক তরুণীকে ধর্ষনের চেষ্টা করে এখন শ্রীঘরে মাহমুদুল রনি হক নামে এক পাষণ্ড। শনিবার গভীর রাতে রাজধানীর কলেজগেট এলাকায় এই জঘন্য ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় স্থানীয়রা এই অমানুষ রনি হককে ধরে ধোলাই দিয়ে পুলিশে দেয়। তবে ঘটনার পর থেকে নির্যাতিতা তরুণীটিকে ওই রাতে আর খুঁজে পায়নি পুলিশ। পরে তাকে রোববার পাওয়া যায় ও এ ঘটনায় মামলা করা হয় বলে জানান শেরেবাংলা নগর থানার ওসি গোপাল গণেশ বিশ্বাস।

কলেজগেট এলাকার স্থানীয় দোকানদার ও পুলিশ জানায়, শনিবার রাত ১টার দিকে তরুণীটি সংসদ ভবন এর সমনে ফার্মগেটে তার বাসায় ফেরার জন্য গাড়ির জন্যে অপেক্ষা করার কিছুক্ষণ পর মাহমুদুল রনি হক নিজের প্রাইভেটকার তরুণীর সামনে থামিয়ে জানতে চান তিনি কোথায় যাবেন। তরুণী ফার্মগেটের কথা বললে তিনি তরুণীকে গন্তব্যে নামিয়ে দেয়ার কথা বলে গাড়িতে উঠতে বলেন। প্রথমে তরুণীটি রনির সঙ্গে যাবেন না বলে জানান। পরে রনি তাকে ফুসলিয়ে গাড়িতে তুলে। কিছুক্ষণ গাড়ি চালিয়েই রনি সিগন্যালে গাড়ি থামান। এরপরেই পাগলা কুকুরের মতই তরুণীটির উপর ঝাপিয়ে পড়ে, ধর্ষনের চেষ্টা করে। এ সময় মেয়েটি নিজেকে রক্ষা করতে রনির সঙ্গে ধস্তাধস্তি করছিলেন। বিষয়টি কয়েকজনের নজরে আসে। তারা এসে রনির প্রাইভেটকারটি ঘিরে ফেলে। পরে ওই নির্যাতিতা তরুনী, মদ্যপ রনি হক ও তার গাড়ি চালককে বের করে এনে ধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।

ওই তরুণী ডেইলি বাংলাদেশকে নিশ্চিত করে বলেন, তাকে রাস্তা থেকে জোর করে গাড়িতে তুলে ধর্ষনের চেষ্টা করেছে রনি হক।

এদিকে রনির বিষয়ে জানা গেছে, তিনি পেশায় ব্যবসায়ী । জিগাতলায় পরিবার নিয়ে থাকেন। একটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে স্নাতক করেছেন। তার গ্রামের বাড়ি গাজীপুরের কাপাশিয়ায়। তিনি এই জঘন্য ঘটনার সময় যে সাদা রঙের প্রাইভেটকারটিতে ছিলেন তার নম্বর ঢাকা মেট্রো-গ-২৯-৫৪১৪।

কিন্তু ঘটনার পর থেকেই ভুক্তভূগি তরুণীটিকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তবে রাত ৩টার দিকে রফি আহমেদ নামে এক ব্যক্তি এই পাশবিক ঘটনার বিবরণ দিয়ে ভিডিও সহ ফেসবুকে পোস্ট করেন। কিন্ত অজানা কারণে রাফি আহমেদ তার ওয়াল থেকে ভিডিওটি মুছে ফেলেন। ততক্ষণে পোস্টটি ভাইরাল (ছড়িয়ে যাওয়া) হয়ে গেছে।

পোস্টে রাফি উল্লেখ করেন, আজ (শনিবার) অফিস থেকে ফেরার পথে মোহম্মদপুর কলেজগেট সিগন্যালে ঠিক আমার সামনের গাড়িটাতে লক্ষ্য করে দেখি ভেতরে একটি ছেলে ও একটি মেয়ে ধস্তাধস্তি করেছে। এবং ড্রাইভার গাড়ি চালানোর ভঙ্গিমা দেখে মনে হচ্ছিল সে গাড়িটা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। তবে, দূর্ভাগ্য তাদের, রাস্তায় তীব্র জ্যাম থাকায় গাড়িটি বেশি দূর যেতে পারেনি। এমতাবস্থায় আমি গাড়ি থেকে নেমে সামনে যেতে যেতে দেখি আরো কিছু লোক গাড়িটির দিকে লক্ষ্য করে এগুচ্ছে। তখনও ভাবতে পারিনি এতটা নিচ ও নিকৃষ্ট ঘটনার চাক্ষুষ প্রমান হতে যাচ্ছি। আমি গাড়িটির কাছে যেতেই দেখি ছেলেটি মেয়েটিকে ধর্ষণ করছে। গাড়ির দরজা খুলে প্রথমে আমরা মেয়েটিকে বাইরে বের করে নিয়ে আসি পরে অপর পাশের দরজা খুলতেই দেখি অতিপরিচিত সেই ছেলেটি অর্থাৎ বড়লোক বাবার বখে যাওয়া নষ্ট সন্তান। ছেলেটিকে বাইরে বের করতে গিয়ে সহ্য করতে হয়েছে বাজে মদের গন্ধ। আর নিজেকে সামলাতে পারলাম না, অতঃপর বসিয়ে দিলাম ওই জানোয়ারের কানের নিচে আমার পাঁচ আঙ্গুলের চিহ্ন।

এরপর ক্ষব্ধ জনতা চিলের মতো করে আমার কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে তাদের বাকি দায়িত্ব পালন করলো। পরে মেয়েটির কাছ থেকে জানতে পারলাম, ওই নরপিশাচটা মেয়েটিকে রাস্তা থেকে জোর করে তুলে নিয়ে এসেছে।

রাফি আহমেদের আপলোড করা ভিডিওতে দেখা দেখা গেছে, স্থানীয় জনতা অভিযুক্ত যুবক ও তার গাড়ি চালককে আটকের পর মারধর করতে করতে বিবস্ত্র করে ফেলে। একপর্যায়ে গাড়ি চালক পালিয়ে যায়। পরে রনি হককে পুলিশে দেয়া হয়।

শেরেবাংলা নগর থানার ওসি গোপাল গণেশ বিশ্বাস বলেন, রনিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। রনি জানিয়েছে,সংসদ ভবনের খেজুর বাগান এলাকা থেকে রনি ও তার চালক দুই তরুণীকে গাড়িতে তোলেন। কলেজগেটের সামনে এক তরুণীকে গাড়ি থেকে নামিয়ে দেয়ার সময় চেচামেচি হয়। এ সময় স্থানীয়রা গাড়িটি আটক করে রনিকে মারধর করে পুলিশে দেয়।

এ ঘটনায় ওই ভুক্তভুগী তরুণী মামলা করেছেন। আসামি করা হয়েছে রনি ও তার গাড়ি চালক ফারককে। ফারককে গ্রেফতারে মাঠে কাজ করছে পুলিশ। ভিডিওটি উদ্ধার করা হয়েছে। আইটি বিশেষজ্ঞরা তা যাচাই বাছাই করছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসবি/আরএ

দেখুন সেই ভিডিওটি

 

 ডেইলি বাংলাদেশ/এসবি/আরএ

সর্বাধিক পঠিত