গাইবান্ধায় হোম কোয়ারেন্টাইনে ১৯০, বাড়ি ফিরেছেন ১০ জন

ঢাকা, রোববার   ৩১ মে ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৮ ১৪২৭,   ০৮ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

গাইবান্ধায় হোম কোয়ারেন্টাইনে ১৯০, বাড়ি ফিরেছেন ১০ জন

গাইবান্ধা প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:৪২ ২ এপ্রিল ২০২০   আপডেট: ১৭:৪৬ ৫ এপ্রিল ২০২০

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

করোনাভাইরাসে গাইবান্ধায় বৃহস্পতিবার নতুন করে আক্রান্ত হওয়ার কোনো খবর পাওয়া যায়নি। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর তাদের করোনা সংক্রমণের কোনো লক্ষণ না পাওয়ায় ১০ জনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে নতুন করে দুইজনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এদিকে এখন পর্যন্ত আমেরিকা প্রবাসী দুইজনসহ তার সংস্পর্শে আসা আরো দুইজনসহ মোট চারজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। এরমধ্যে তিনজন গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ও অপরজন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের আইসোলেশনে রয়েছেন। 

অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯০ জন ব্যক্তিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। এরমধ্যে সদরে ৩৬, ফুলছড়িতে ৪, সুন্দরগঞ্জে ৪৫, সাঘাটায় ১২, পলাশবাড়িতে ৫, গোবিন্দগঞ্জে ৩৮ ও সাদুল্যাপুর উপজেলায় ৪১ এবং বগুড়া জেলায় ৯ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে। এছাড়া জেলা সদর হাসপাতালে ১ জনকে সন্দেহজনক হিসেবে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জন অফিসের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত কন্ট্রোল রুম থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

সিভিল সার্জন ডা. এবিএম আবু হানিফ জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থানে বিদেশফেরত ১৯০ ব্যক্তিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ঢাকা থেকে নমুনা পরীক্ষার ফলাফল না জানা পর্যন্ত সন্দেহজনক রোগীদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার ডিসির এক প্রেস রিলিজে জানা গেছে, এ পর্যন্ত জেলার সাতটি উপজেলা ও চারটি পৌরসভায় ৯ হাজার ৪শ’ দরিদ্র শ্রমজীবী কৃষক পরিবারের মধ্যে ৯৪ মেট্রিক টন খাদ্য সামগ্রী ও ৮ হাজার ৯শ’ পরিবারের মধ্যে ৪ লাখ ৪৫ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া বিতরণের জন্য জেলা প্রশাসনের ত্রাণ ভান্ডারে ১শ’ ৪২ মেট্রিক টন খাদ্য সামগ্রী মজুদ রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম/এআর/