গর্ভবতী মেয়েকে বিয়ে করে ফেঁসে গেলেন স্বামী, প্রেমিক গ্রেফতার

ঢাকা, বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১২ ১৪২৭,   ০৮ রবিউস সানি ১৪৪২

গর্ভবতী মেয়েকে বিয়ে করে ফেঁসে গেলেন স্বামী, প্রেমিক গ্রেফতার

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:১৫ ২২ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৩:১৮ ২২ জানুয়ারি ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

প্রেমের সম্পর্কের সূত্রে একটি নির্মাণাধীন বাড়িতে বেশ কয়েকবার মিলনে লিপ্ত হন প্রেমিক-প্রেমিকা। তবে প্রেমিকার গর্ভে প্রাণ সঞ্চারের বিষয়টি টের পাননি কেউ। এরপর অন্য ছেলের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন প্রেমিকা। তবে বিয়ের ৪৫ দিনের মাথায় স্ত্রী গর্ভবতীর খবর জানলেন স্বামী। এতে মান রক্ষায় স্ত্রীকে গর্ভপাত করান। কিন্তু উল্টো ফেঁসে গেলেন স্বামী।

মঙ্গলবার কুষ্টিয়ার মিরপুরের ধুবইল ইউপির কাদেরপুর গ্রাম থেকে গর্ভপাতের অভিযোগে স্বামী সাদ্দাম হোসেনকে আটক করে পুলিশ। সাদ্দাম ওই গ্রামের মোফাজ্জেল হোসেনের ছেলে।

মঙ্গলবার বিকেলে ভুক্তভোগী নারী একটি মামলা করেছেন। ওই মামলায় সাবেক প্রেমিক সোহাগকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোহাগ মিরপুরের পোড়াদহ ইউপির স্বরুপদহ শিলের খাল গ্রামের খয়বার আলী ছেলে।

মামলার তথ্যানুযায়ী, পাঁচ বছর ধরে সোহাগের সঙ্গে ওই ভুক্তভোগী নারীর প্রেম ছিল। সেই সূত্রে ২০১৯ সালের ২ ফেব্রুয়ারি একটি নির্মাণাধীন ভবনে প্রেমিকের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হন প্রেমিকা। এরপর বেশ কয়েকবার তারা শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন। তবে প্রেমিকা গর্ভবতী হওয়ার বিষয়টি কেউ বুঝতে পারেননি।

ভুক্তভোগী জানান, দেড় মাস আগে সাদ্দাম হোসেন নামের এক ছেলের সঙ্গে তাকে বিয়ে দেন তার বাবা-মা। বিয়ের পরই আট মাসের গর্ভবতী জানতে পারেন স্বামী সাদ্দাম। এতে বিয়ের ৪৫ দিনের মাথায় গর্ভপাতের ওষুধ সেবন করান তার স্বামী। এতে তার ব্যথা শুরু হলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। সেখানেই একটি মৃত নবজাতকের জন্ম দেন তিনি।

মিরপুর থানার ওসি আবুল কালাম জানান, ভুক্তভোগী থানায় একটি মামলা করেছেন। ওই মামলায় সোহাগকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগে ভুক্তভোগীর স্বামীকে আটক করা হয়েছে। এসব ঘটনায় বুধবার উভয়কে আদালতে পাঠানো হয়েছে।
 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ