Alexa গরিব রোগীদের ভাড়া নেন না এই ‘সবুজ বাগান’ সিএনজিচালক

ঢাকা, বুধবার   ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০,   ফাল্গুন ৬ ১৪২৬,   ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

Akash

গরিব রোগীদের ভাড়া নেন না এই ‘সবুজ বাগান’ সিএনজিচালক

শাহাদাত হোসেন রাকিব ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:২২ ২২ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ২২:৪৯ ২২ জানুয়ারি ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

সাত রকমের ফুলের গাছ ও ফুল। চারদিকে কৃত্রিম ঘাস। দেখেই যেন মনে হয় ছোট একটি সবুজ ফুলের বাগান! তবে এটি বাগান নয়, সিএনজিচালিত অটোরিকশার উপরের অংশ। 

পরিবেশ সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করতেই এমনভাবে অটোরিকশাটি সাজিয়েছেন চালক তপন চন্দ্র ভৌমিক। রাজধানীর খিলগাঁও ও গোড়ান এলাকার অসহায়, গরিব রোগী ও গর্ভবতী মায়েদের মেডিকেলে যাতায়াত হলে কোনো টাকাও নেননা তিনি। 

বুধবার বিকেলে মোহাম্মদপুরে দেখা যায় তার এ সিএনজিচালিত সবুজ রঙের অটোরিকশাটি। বাইরে ফুল গাছ আর ফুল থাকলেও ভেতরে দেখা যায় বাজরিগার পাখি, অ্যাকোয়ারিয়ামসহ অন্তত ১০ ধরনের টুকিটাকি জিনিস। 

অটোরিকশাকে এভাবে সাজানোর কারণ সম্পর্কে তপন চন্দ্র ভৌমিক ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, মানুষ এখন আর গাছপালা, বাগানকে তেমন একটা গুরুত্ব দিয়ে করে না। এজন্য প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘটছে। মূলত মানুষকে সচেতন করার লক্ষ্যেই আমার এমন উদ্যোগ। 

গরিব রোগীর যাতায়াত ভাড়া না নেয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মানবিকতা থেকেই আমি খিলগাঁও ও গোড়ান এলাকার গরীব রোগী ও গর্ভবতী মায়েদের মেডিকেলে যাতায়াত ভাড়া নেই না। কারণ, মানুষ মানুষের জন্য। ভবিষ্যতে রাস্তায় বস্ত্রহীনদের (মানসিক রোগী) বস্ত্র দেয়ার পরিকিল্পনা আছে আমার। 

খিলগাঁওয়ের গোড়ানে পরিবার নিয়ে থাকেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার তপন চন্দ্র। তার এক ছেলে ও দুই মেয়ে। আগে অলংকারশিল্পী থাকলেও চোখে সমস্যা হওয়ায় কাজ ছেড়ে প্রায় ১০ বছর ধরে চালকের পেশায় আছেন।

ভাড়ায় চালিত অটোরিকশাটি তপন চন্দ্রের নিজের না। দিনশেষে যা আয় হয় তার একটি নির্দিষ্ট অংশ দিতে হয় মালিককে। বাকি আয়ের একাংশ খরচ করেন গাছগুলোর রক্ষণাবেক্ষণে। তিনি জানান, সবুজ বাংলা নামের একটি নার্সারি তাকে মাঝেমধ্যে বিনামূল্যে এসব গাছ দিয়ে থাকেন।

বিশেষ কোনো ইচ্ছে বা স্বপ্ন আছে কিনা-জানতে চাইলে তপন চন্দ্র ভৌমিক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আমি কাছ থেকে তাকে একটু দেখতে চাই। তার সাক্ষাৎ পেলে নিজেকে ধন্য মনে করবো।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএইচআর/এসআই/আরএ