গমের ব্লাস্ট রোগ দমনে প্রশিক্ষণ

ঢাকা, সোমবার   ১৭ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৪ ১৪২৬,   ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

গমের ব্লাস্ট রোগ দমনে প্রশিক্ষণ

মেহেরপুর প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: ২২:০০ ১৩ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ২২:০০ ১৩ জানুয়ারি ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

মেহেরপুরে গমের ব্লাস্ট রোগ ও তার দমন ব্যবস্থাপনা শীর্ষক প্রশিক্ষণে রোববার দুপুরে চাষিদের পরামর্শ প্রদান করেছেন ভুট্টা ও গম গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা। 

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর প্রশিক্ষণ কক্ষে অনুষ্ঠানে প্রধান প্রশিক্ষক হিসেবে গমের বিদ্যমান জাত, ব্লাস্ট ও তার প্রতিকার এবং ব্লাস্ট প্রতিরোধী জাত সম্পর্কে চাষিদের প্রশিক্ষণ প্রদান করেন ভুট্টা ও গম গবেষণা কেন্দ্রের মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা পরিতোষ কুমার মালাকার। 

তিনি বলেন, ২০১৬ সালে এই মেহেরপুর জেলায় প্রথম গমের ব্লাস্ট রোগ ধরা পড়ে। ২০১৮ সাল পর্যন্তও গমে ব্লাস্ট দেখা দেয়। তিনটি মৌসূমে আমরা এখান থেকে রোগাক্রান্ত গমের স্যাম্পল নিয়ে তা প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে প্রতিকার ব্যবস্থা করেছি। এখন প্রতিকার ও প্রতিরোধ ব্যবস্থা চাষিদের হাতে। গমের রোগমুক্ত ভালো বীজ সংরক্ষণ ও বপণের আগে বীজ শোধন করতে হবে এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে (১৫ নভেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বর) বপণ করতে হবে গম বীজ। শীষ বের হওয়ার সময় একবার এবং শীষ বের হওয়ার ১০/১২ দিন পরে আরেকবার নাটিভো অথবা এমিস্ট্রার টপ স্প্রে করলে ব্লাস্ট প্রতিরোধ করা সম্ভব। 

এ ছাড়াও বারি গম ৩০ হচ্ছে স্বল্প মাত্রার ব্লাস্ট প্রতিরোধী এবং বারি গম ৩৩ হচ্ছে উচ্চ মাত্রার ব্লাস্ট প্রতিরোধী জাত। এই দুু’টি জাত ছাড়াও ব্লাস্ট প্রতিরোধী এবং উচ্চফলনশীল আরো কয়েকটি জাত উদ্ভাবন পর্যায়ে রয়েছে। গবেষক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের কর্মীসহ মাঠ পর্যায়ে আমরা কাজ করে ব্লাস্ট প্রতিরোধে সফলতা পেয়েছি। এখন যদি চাষিরা কয়েকটি বিষয় মেনে চলেন তাহলে ব্লাস্ট আতঙ্ক আর থাকবে না।

এছাড়াও প্রজেক্টর প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে ব্লাস্ট ও গমের নুতন জাত নিয়ে কাজ করার বিভিন্ন চিত্র ও তথ্য উপাত্ত দিয়ে চাষিদের সখ্যক ধারনা দেন গম বিজ্ঞানী পরিতোষ কুমার মালাকার। প্রশিক্ষণে এলাকার শতাধিক গম চাষি অংশ গ্রহণ করেন। 

প্রশিক্ষণ উদ্বোধন করেন মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক ড. আখতারুজ্জামান। বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা স্বপন কুমার খাঁ। বাংলাদেশ গম গবেষণা কেন্দ্র দিনাজপুর ও কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। 

এ প্রসঙ্গে মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, গমের ব্লাস্ট প্রতিরোধে চাষিদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান অব্যাহত রয়েছে। অনেক মাঠে গমের শীষ বের হচ্ছে। এখন প্রয়োজনীয় স্প্রে নিশ্চিত করতে মাঠে কাজ করছেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা। 
 
ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে