Exim Bank
ঢাকা, শনিবার ২৩ জুন, ২০১৮
Advertisement

গমশীষে সোনারঙ মাঠ

 মেহেরপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:০৩, ১৩ মার্চ ২০১৮

১৫৬ বার পঠিত

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

মেহেরপুরে এবার গমের বাম্পার ফলন হয়েছে। হুইট ব্লাস্ট রোগের ভয়ে এবার চাষ কম হলেও গতবারের চেয়ে এবার উৎপাদন বেড়েছে।

সরেজমিনে মেহেরপুর জেলার বিভিন্ন গ্রামের মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, ইতোমধ্যে গম কাটা এবং মাড়াই শুরুও করেছেন কৃষকরা। সামনে কয়েকটা দিন আর কোনো বড় প্রাকৃতিক দুর্যোগ দেখা না দিলে আশা করা যায়, এবার গতবারের চেয়ে বেশি গম উৎপাদন হবে।

এবার প্রতি হেক্টর জমিতে দুই দশমিক ৯ মেট্রিক টন হারে গমের উৎপাদন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। গত বছর ছিল প্রতি হেক্টরে ২ দশমিক ৮ মেট্রিক টন হারে।

মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্য মতে, জেলাতে স্বাধীনতা পরবর্তী ১৯৮০’র দশকে গম চাষ বৃদ্ধি পেতে থাকে। অনেক বছর অব্যাহত থাকার পর ২০১৫ সালে ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হলে গমচাষ কমে যায়। এবার গমচাষ হয়েছে ২ হাজার ৮৪১ হেক্টর জমিতে।

মেহেরপুর সদর উপজেলার ঝাউবাড়িয়ার গমচাষি নিজাবত হোসেন জানান, এবার তিনি ৫ বিঘা জমিতে গমচাষ করেছেন। এরই মধ্যে গম কাটা-মাড়াই শুরুও হয়েছে। বিঘা প্রতি ১৯-২০ মণ গমের উৎপাদন হচ্ছে।

গাংনী উপজেলার সাহারবাটির গমচাষি তিব্বত হোসেন জানান, এর আগে এত ফলন কখনও দেখেননি বলে।তিনি আরো বলেছেন, মাঠে গমের জমিতে গেলে সোনালী শীষ দেখে প্রাণ জুড়িয়ে যাচ্ছে।

মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক ড. মো. আক্তারুজ্জামান জানান, মেহেরপুরে গমে এবার স্মরণকালের  ফলন হচ্ছে। চাষ কম হলেও উৎপাদন বাড়ায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হবে বলেও আশা করা হচ্ছে। এবার বিঘা প্রতি ২০ মণ হারে গম উৎপাদন হচ্ছে বলেও জানান তিনি। এরই মধ্যে আগামী কয়েকদিন আবহাওয়া অনুকূর থাকলে গমের আর কোনো সমস্যা হবে না। ফলে কৃষকরাও ভালো ভালোই গমগুলো তাদের ঘরে তুলতে পারবেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আজ/আরআর

সর্বাধিক পঠিত