গবেষণার ভয়ানক তথ্য: ২৭ ফুট দূর থেকেও ছড়ায় করোনাভাইরাস!

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৪ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭,   ১১ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

গবেষণার ভয়ানক তথ্য: ২৭ ফুট দূর থেকেও ছড়ায় করোনাভাইরাস!

বিজ্ঞান ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:১১ ১ এপ্রিল ২০২০   আপডেট: ১৫:১৩ ১ এপ্রিল ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

৩ বা ৬ নয়, ২৭ ফুট দূর থেকেও করোনায় সংক্রমিত হতে পারে যে কেউ, ভাইরাসটি কয়েক ঘণ্টা বাঁচতেও পারে। এমনটাই দাবি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (এমআইটি) সহযোগী অধ্যাপক লিডিয়া বুরিবা।

করোনা সংক্রমণ থেকে নিরাপদ থাকতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) বলেছে, যে কারো কাছ থেকে ছয় ফুট দূরে থাকলেই করোনা সংক্রমণের ভয় থাকবে না। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) গাইডলাইনে বলা হয়েছে, দুইজন মানুষের মধ্যে তিন ফুট দূরত্ব থাকলেই নিরাপদ।

ডব্লিউএইচও এবং সিডিসি’র সেই গাইডলাইনকে ভুল বলে অভিহিত করলেন অধ্যাপক লিডিয়া বুরিবা। তিনি বলেছেন, এই গাইডলাইন একদম সেকেলে ধারণার ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে। ১৯৩০ সালের গবেষণায় পাওয়া তথ্যের সঙ্গে বর্তমান বাস্তবতার কোনো মিল নেই।

লিডিয়া অনেক বছর ধরে কাজ করছেন মানুষের কফ ও হাঁচির গতিপ্রকৃতি নিয়ে। গত সপ্তাহে আমেরিকান মেডিক্যাল এসোসিয়েশনের জার্নালে প্রকাশিত বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধে তিনি বলেছেন, ১০০ বছর আগের সেই তথ্য-উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে বর্তমানে করোনা ঠেকানোর যে গাইডলাইন দেয়া হয়েছে, তা পুরোপুরি ভুল। করোনা ভাইরাসের মতো রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণু ২৩ থেকে ২৭ ফুট দূরত্ব অনায়াসেই অতিক্রম করতে পারে। নির্দিষ্ট কক্ষপথে বিচরণকারী ভাইরাসটি ঘণ্টার পর ঘণ্টা বাতাসে ভেসে থাকতে সক্ষম। করোনা ভাইরাস বেশিক্ষণ বাঁচে না, এই ধারণারও তীব্র বিরোধিতা করেছেন লিডিয়া।

চীনের সাম্প্রতিক একটি প্রতিবেদনের উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোভিড-১৯ রোগী হাসপাতালের যে রুমে থাকছেন, সেই রুমের বাতাস চলাচলের পথে জায়গা করে নেয় ভাইরাসটির ক্ষুদ্রাংশ। এই ভাইরাসের সংক্রমন ঠেকাতে হলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও সিডিসিকে অবশ্যই তাদের গাইডলাইন সময়োপযোগী করতে হবে।

লিডিয়া বুরিবার দাবিকে উড়িয়ে দেয়নি ডব্লিউএইচও। এমআইটি গবেষকের দেয়া নতুন তথ্যের প্রেক্ষিতে সংস্থার এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ডব্লিউএইচও অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে কঠিন এই পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে। আরো তথ্য পাওয়া গেলে সংস্থাটি অবশ্যই করোনার ব্যাপারে পরামর্শ ও গাইডলাইন হালনাগাদ করবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস