খুলনায় করোনা সন্দেহভাজন রোগীর মৃত্যু
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=171393 LIMIT 1

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ৮ ১৪২৭,   ০৫ সফর ১৪৪২

খুলনায় করোনা সন্দেহভাজন রোগীর মৃত্যু

খুলনা প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৩৭ ২৬ মার্চ ২০২০   আপডেট: ২০:০২ ২৬ মার্চ ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহভাজন এক রোগী (৪৫) বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টায় মারা গেছেন। তার বাড়ি মহানগরীর হেলাতলা এলাকায়।

ওই রোগীকে চিকিৎসা দেয়া ১৫/২০ জন চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীকে হোম কোয়ারেন্টানে পাঠানো হচ্ছে। হাসপাতালের পরিচালক বলছেন, তার ৯০ শতাংশ সন্দেহ ওই রোগী করোনায় আক্রান্ত ছিলেন।

হাসপাতালের পরিচালক ডা. এ টি এম মঞ্জুর মোর্শেদ জানান, ওই রোগীর জ্বর ও শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়ার পর চিকিৎসকরা তার চিকিৎসা সংক্রান্ত পূর্ববর্তী তথ্য নেন। এই হাসপাতালে আসার আগে ওই রোগী ঢাকার একটি হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি ছিলেন। একই আইসিইউতে চিকিৎসাধীন করোনা আক্রান্ত একজন রোগী মারা যায়। কিন্তু ওই রোগী এখানে ভর্তির সময় সেই তথ্য গোপন করেন। তা না হলে তাকে করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হতো।

তিনি জানান, তার মরদেহ হাসপাতালে পড়ে আছে। যে সব চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী তার সংস্পর্শে এসেছে তাদের সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হবে। সেই সংখ্যা কত জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রায় ১৫/২০ জন হবে।

ডা. মোর্শেদ জানান, ওই রোগীকে ঢাকার ওই হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়ার পর হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলেছিল। তিনি তা মানেননি এবং তথ্য গোপন করে এখানে ভর্তি হন। তার কারণে ঝুঁকি বেড়ে গেলো। মারা যাওয়া ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত কিনা তা পরীক্ষা করা হবে কিনা-এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে ঢাকায় আইইডিসিআরে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

খুমেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ফোকাল পয়েন্ট ডা. শৈলেন্দ্রনাথ বিশ্বাস জানান, ঢাকার হাসপাতাল থেকে থাইরয়েড অপারেশন করে পোস্ট অপারেটিভ চিকিৎসার জন্য এক রোগী খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসে। বুধবার রাত আড়াইটার দিকে তাকে হাসপাতালের সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। বৃহস্পতিবার সকালে তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। প্রথমে সবাই ভেবেছিল অপারেশনের কারণে হয়তো এ রকম হচ্ছে। দুপুর দেড়টার দিকে তিনি মারা যান।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে