খুলনায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫শ’ ছাড়ালো

ঢাকা, সোমবার   ০৬ জুলাই ২০২০,   আষাঢ় ২২ ১৪২৭,   ১৪ জ্বিলকদ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

খুলনায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫শ’ ছাড়ালো

খুলনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:০০ ২৯ মে ২০২০  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

খুলনা বিভাগে করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ৫০০ জন পেরিয়েছে। এরমধ্যে মারা গেছেন ৮ জন, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৯২ জন ও সুস্থ হয়েছেন ১৯৭ জন।

শুক্রবার সন্ধ্যায় খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের দফতর থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত খুলনা বিভাগের করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ৪৭৬ জন। সন্ধ্যায় খুমেকের পিসিআর ল্যাবে ৬ জন ও কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে ১৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এই নিয়ে বিভাগে মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫০০ জন।

খুলনা বিভাগের ১০ জেলার মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের শীর্ষে রয়েছে যশোর ও সর্বনিম্নে রয়েছে মেহেরপুর জেলা। এর আগে বিভাগের খুলনায় ৩ জন, বাগেরহাটে ২ জন, নড়াইলে ১ জন, বাগেরহাটে ১ জন ও চুয়াডাঙ্গায় ১ জন করোনায় মারা গেছেন।

শুক্রবার খুলনা মেডিকেল কলেজের আরটি পিসিআর ল্যাবে শিল্পাঞ্চল পুলিশের এক সদস্যসহ ৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে খুলনার একজন, বাগেরহাটের তিনজন ও ঝিনাইদহের দুইজন। এ নিয়ে খুলনা জেলায় মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৬ জনে।

রাতে খুমেকের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ জানান, খুলনা মেডিকেলের পিসিআর ল্যাবে ৯৪ জনের করোনা সন্দেহে নমুনা পরীক্ষায় ৮৮ জনের দেহে নেগেটিভ আর ছয়জনের দেহে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এই ছয় পজিটিভ ব্যক্তির মধ্যে একজন খুলনা সিটির খালিশপুর শিল্প এলাকার পুলিশ সদস্য, অন্য পাঁচজনের দুইজন ঝিনাইদহ সদরের একজন ও শৈলকুপার একজন, বাকি তিনজন বাগেরহাট জেলার শরণখোলার বাসিন্দা। খুলনা ডেটিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দুইজন সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরেছেন। এই সুস্থ দুই ব্যক্তি হলেন, খুলনা সিটির গল্লামারীর আকরাম হোসেন এবং আরেকজন খুলনা সদর হাসপাতালের একজন টেকনিশিয়ান।

এদিকে গত ১০ মার্চ থেকে খুলনা বিভাগের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল ৩৬ হাজার ৫৮ জনকে। এরমধ্যে কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ ১৪ দিন পার হওয়ার পর ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে ২৯ হাজার ৭৮৮ জনকে। বাকিরা এখনো হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

খুলনা বিভাগের ১০ জেলার মানুষের করোনার পরীক্ষার জন্য তিনটি পিসিআর ল্যাব রয়েছে। এগুলো হলো, খুলনা মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাব, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পিসিআর ল্যাব ও কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের পিসিআর ল্যাব। বিভাগে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত ১৯ মার্চ চুয়াডাঙ্গা জেলায়।

খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. রাশেদা সুলতানা বলেন, বিভাগের প্রত্যেক জেলায় করোনা মোকাবিলায় কমিটি গঠন করা হয়েছে। আক্রান্তদের উপসর্গের মাত্রা বেশি না থাকলে তাদেরকে বাড়িতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আর উপসর্গ বেশি হলে হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে। যারা সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরছেন তাদের বিষয়েও খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম