Exim Bank
ঢাকা, শনিবার ২৩ জুন, ২০১৮
Advertisement

খালেদা জিয়ার জামিনে প্রমাণ বিচার বিভাগ স্বাধীন: হাছান

 নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৫০, ১৩ মার্চ ২০১৮

১৩৬ বার পঠিত

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি চেয়াপার্সন খালেদা জিয়ার জামিনে প্রমাণিত হলো বাংলাদেশের বিচার কার্যক্রম স্বাধীনভাবে চলছে। সরকার বিচার বিভাগের ওপর কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ বা প্রভাবিত করে না।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম এ জলিলের ৫ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ‘বর্তমান প্রেক্ষাপট ও চলমান রাজনীতি’ শীর্ষক এক স্মরণসভায় তিনি এমন মন্তব্য করেন।
বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

সরকার স্বাধীনভাবে আদালতের কার্যক্রম পরিচালনা করতে দিচ্ছে না বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, তার (খালেদা জিয়ার) এই রায়ের ফলে বিএনপি নেতাদের অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। বিএনপি নেত্রীর দুর্নীতির মুখোশ উন্মোচিত হয়েছে। দুর্নীতি সম্পর্কে বর্তমান সরকারের জিরো টলারেন্স নীতির ফলে এটা সম্ভব হয়েছে।

খালেদা জিয়ার মামলায় সরকারের কোনো হাত নেই মন্তব্য করে হাছান বলেন, এটা একটি দুর্নীতির মামলা ছিল।তাই এই মামলার রায়ের পরে বিদেশি কোনো রাষ্ট্রের প্রতিক্রিয়াও নেই। এমনকি দেশের মানুষের কোনো সাড়াও মেলেনি।

বিএনপি শুধু জঙ্গিদের আশ্রয়-প্রশয়দাতা না, দুর্নীতিবাজদের আশ্রয়-প্রশয়দাতা। তাই মিথ্যাচার থেকে বিরত থেকে আগামী জাতীয় নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতেও বিএনপির প্রতি আহবান জানান তিনি।

আব্দুল জলিলের স্মৃতিচারণ করে হাছার মাহমুদ বলেন, আব্দুল জলিল ছিল আওয়ামী লীগের বিশ্বস্ত বন্ধু এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রকৃত সৈনিক। ৭৫’র পর অনেকেই বেঈমানী করেছিলেন কিন্তু আব্দুল জলিল কখনো বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়নি এবং আওয়ামী লীগের সঙ্গে বেঈমানী করেনি।

একই স্মরণ সভায় খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছে। তিনি (খালেদা জিয়া) নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবে কি পারবে না, এটা আদালতই নির্ধারণ করবেন।

নির্বাচন নিয়ে বিএনপিকে বিভ্রান্তমূলক বক্তব্য থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, বিএনপিসহ সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে আগামী নির্বাচন হবে এটাই আমরা প্রত্যাশা করি।

আব্দুল জলিল ছিলেন মাঠ পর্যায়ের তৃণমুল নেতা-কর্মীদের প্রাণের নেতা। তিনি কর্মীদের দুঃখ-কষ্ট দেখলে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন এবং নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন করতেন। তিনি চিরদিন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকদের কাছে বেঁচে থাকবেন।

সংগঠনের উপদেষ্টা লায়ন চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের সহ-সভাপতি চিত্রনায়িকা ফারজানা আমিন নতুন, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অরুন সরকার রানা, কৃষক লীগের সহ-সভাপতি শেখ মো. জাহাঙ্গীর আলম, ছাত্রলীগ নেতা অভিষেক ঘোষ, গেদুচাচা খ্যাত খোন্দকার মোজাম্মেল হক প্রমুখ।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসআইএস/এসআই

সর্বাধিক পঠিত