খাদ্য নিয়ে দ্বারে দ্বারে এমপি সীমা

ঢাকা, শুক্রবার   ০৫ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ২২ ১৪২৭,   ১২ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

খাদ্য নিয়ে দ্বারে দ্বারে এমপি সীমা

কুমিল্লা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৩৭ ৯ এপ্রিল ২০২০   আপডেট: ২০:২৯ ৯ এপ্রিল ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

করোনার প্রকোপে বিপাকে পড়া কর্মহীন ও হতদরিদ্র মানুষ যখন হতাশার সাগরে ডুবে আছেন। ঠিক সে মুহূর্তে নির্জন রাতে খাদ্য সামগ্রী হাতে নগরীর অলি-গলিতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি ও কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আঞ্জুম সুলতানা সীমা। কড়া নাড়ছেন কর্মহীন ও হতদরিদ্র মানুষের দরজায়। ব্যক্তিগত অর্থায়নে নিজ হাতে তুলে দিচ্ছেন নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী।

গত কয়েকদিন ধরে কুমিল্লা নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে বিপর্যস্ত মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে নিজ হাতে তিনি এসব খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। এরইমধ্যে স্থানীয়দের তোলা ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এমপি আঞ্জুম সুলতানা সীমার এমন কর্মকাণ্ডে ফেসুবকে অভিনন্দনের ঝড় ওঠে।

এমপি সীমার এ মহতি উদ্যোগকে ‘ইসলামের ইতিহাসের খোলাফায়ে রাশেদীনের আদর্শের প্রতিফলন’ হিসেবে মন্তব্য করেছেন ১২ নম্বর ওয়ার্ডের প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা খাদেম ফিরোজ।

নগরীর ২২ নম্বর ওয়ার্ডের  মিজানুর রহমান বলেন, ইপিজেড এ চাকরি করি এখনো এ মাসের বেতন পাইনি। ঘরে  বৃদ্ধ বাবা-মা আছেন। রাত সাড়ে ৯টায় হঠাৎ ঘরের দরজার ধাক্কা দিয়ে বাড়ির মালিক ডাক দেয়। আমি মনে করলাম বাসার ভাড়ার জন্য ডাক দিয়েছে। মনটা খারাপ হয়ে গেল। দরজা খুলেই দেখি সীমা আপা সালাম দিয়ে একটি বস্তা নেয়ার জন্য বলল। আমি খুশিতে আত্মহারা। এ সময়ে বস্তায় ৫ কেজি চাল, ৩ কেজি পেঁয়াজ, এক কেজি মুসর ডাল, ২ কেজি আটা, ২ কেজি সয়াবিন তেল, ২টি সাবান, ২টি মাস্ক ও ১টি হ্যান্ড স্যানিটাইজার। পরে আপা নিজ মোবাইল নাম্বারটি দিয়ে বলল। প্রয়োজনে ফোন দিও।

চর্থার আলেয়া বেগম বলেন, রাতের বেলায় একজন এমপি আমাকে চাল ডাল সাহায্য করেছে তাও আবার নিজে এসে। এটা সাহায্য না, সীমা আপা যে আমার বাড়িতে এসেছে এতেই আমার পেটের ক্ষুধা মিটে গেছে।

নুরপুর এলাকার শরীফ আহমেদ জানান, সীমা আপা রাতে আমাদের বাসায় এসেছেন আমাদের এলাকার অসহায়দের নিজ হাতে খাদ্য সামগ্রী দিয়েছেন। আমি মোবাইলে একটি ছবি তুলতে গেলে আপা নিষেধ করেন। আর এটা আমার কাছে অনেক ভালো লেগেছে। আপা প্রচার ছাড়াই সাধারণ মানুষদের সাহায্য করছেন।

ঠাকুরপাড়ার অধ্যক্ষ তাপস পাল বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে করোনার প্রকোপে সমাজের নিম্নবিত্ত মানুষেরা কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। তারা অর্ধাহারে-অনাহারে দিন কাটালেও লজ্জার কারণে মুখ খুলে কারো কাছে কিছু চান না। এ অবস্থায় বিত্তবানদের উচিত এমপি সীমার অনুকরণে কর্মহীন ও দরিদ্রদের প্রতি মানবিক সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয়া।

এ বিষয়ে আঞ্জুম সুলতানা সীমা এমপি বলেন, আমাদের মমতাময়ী বাংলার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে যতটুকু সামর্থ্য সে অনুযায়ী আমি সাহায্য করছি। এ মহামারি যতদিন থাকবে ততদিন করে যাবো।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ