Alexa খবরটি পড়লে চোখে জল আসবেই

ঢাকা, বুধবার   ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০,   ফাল্গুন ৭ ১৪২৬,   ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪১

Akash

খবরটি পড়লে চোখে জল আসবেই

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৪৪ ১২ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

২৯ অক্টোবর ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তার কাছে লায়ন এয়ার ফ্লাইট ৬১০ বিমানটি টেক-অফের কিছুক্ষণ পরই সাগরে আছড়ে পড়ে। ওই বিমানের কোনো আরোহীই বেঁচে নেই। মৃতদের এই তালিকায় ছিলেন ইন্দোনেশিয়ার রিও নান্দা প্রাতামা যিনি ইনতান সিয়েরির হবু স্বামী ছিলেন।

নভেম্বরের ১১ তারিখ বিয়ে হওয়ার কথা ছিল কিন্তু তাদের ভাগ্য এমনই, বিয়ের মাত্র কয়েকদিন আগে এক বিমান দুর্ঘটনায় মারা যান প্রাতামা। এরপর শোকাতুর হয়ে পড়েন তার বাগদত্তা সিয়ারি। 

এরপরও নির্ধারিত ১১ নভেম্বর বিয়ের সাদা পোশাক ও অলংকার পড়ে হাতে তুলে নেন ফুলের তোড়া। হবু স্বামীর মৃত্যু হলেও তিনি সাজেন নববধূর বেশে। কিন্তু কেন? কারণ এটাই ছিল প্রাতামার শেষ ইচ্ছা। তাই বিয়ের নির্ধারিত দিনে সেজেগুজে ছবি তোলেন সিয়ারি।

সিয়ারির ইনস্টাগ্রামে দেখা যায়, তিনি ও তার বাগদত্ত মিলে যে বিয়ের গাউনটি কিনেছিলেন, তা পড়ে ছবি তুলেছেন। পারমানার সহকর্মী ইফান দেভিয়ান্দ্রি জানান, বিমানে ওঠার আগে সিয়ারিকে মজা করে বলেছিলেন তার বাগদত্ত প্রাতামা। তিনি বলেছিলেন, প্রাতামা ফিরে না এলেও যেন সিয়ারি বিয়ের ফটোশ্যুট করেন পরিকল্পনা মতোই। ওই ফ্লাইট থেকে আর বেঁচে ফেরেননি প্রাতামা।

বাগদত্তের ইচ্ছে রাখতে তোলা এই ছবি ইনস্টাগ্রামে পোস্টের সময়ে নিচে সিয়ারি লেখেন, “যদিও আমার শোক প্রকাশের কোনো ভাষা নেই, তবুও তোমার জন্য আমার মুখে হাসি ধরে রাখতে হবে। আমার দুঃখের সীমা নেই কিন্তু আমার শক্ত থাকতে হবে, যেমনটা তুমি হতে বলেছিলে।’

বিবিসির তথ্য অনুযায়ী, প্রাতামা ও সিয়ারি একে অপরকে চেনেন ১৩ বছর ধরে। আর পুরনো এক ইনস্টাগ্রাম পোস্টে সিয়ারি জানিয়েছিলেন, প্রাতামা তার ‘প্রথম ভালোবাসা’।

ফটোগ্রাফার ইনদ্রা প্রেমানা জানান, তিনি এই ছবি তোলা নিয়ে খুবই সন্দিহান ছিলেন প্রথমে। তিনি ভাবছিলেন ইনতানের অনুভূতি কেমন হবে, ছবিগুলো কেমন আসবে। কিন্তু ইনতান শক্ত ছিলেন এবং ছবিগুলোও ভালো এসেছে।

ছবিগুলো ইতোমধ্যেই ভাইরাল হয়ে গেছে অনলাইনে। সারা পৃথিবীর মানুষ সান্ত্বনা জানাচ্ছেন ইনতানকে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস