ঢাকা, রোববার   ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯,   ফাল্গুন ৫ ১৪২৫,   ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪০

ক্রিকেটকে বিদায় বললেন গম্ভির

স্পোর্টস ডেস্ক

 প্রকাশিত: ১৩:২৯ ৫ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৩:২৯ ৫ ডিসেম্বর ২০১৮

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

ক্রিকেটকে বিদায় জানালেন ভারতীয় ওপেনার গৌতম গম্ভীর। ৬ ডিসেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া অন্ধ্র প্রদেশ ও দিল্লির মধ্যকার রঞ্জি ট্রফির ম্যাচটিই হতে যাচ্ছে গম্ভীরের ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ।

মঙ্গলবার নিজের সামাজিক যোগাযোগ-মাধ্যমে এক ভিডিও বার্তায় সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দেন ভারতের বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য গম্ভির।

 

গম্ভির বলেছেন, ‘অবসরের ভাবনাটা গত কয়েক মাসে প্রতিপক্ষের বোলারের মতো আমাকে জ্বালিয়েছে। বিরক্তিকর হয়ে দাঁড়িয়েছিল কথাগুলো তোমার সময় শেষ গৌতি। মাঠে নেমেও মনের এই কথা শুনেছি। বারবারই মন একই কথা বলে গেলেও আমি যেন শুনেও শুনতে চাইনি। শরীরের ওপর অত্যাচার করেছি। ভালবাসা মাঝেমধ্যে স্টেরয়েডের মতো কাজ করে। তাই গত মৌসুমেও ভেবেছিলাম, ফের আত্মবিশ্বাস নিয়ে ক্রিকেট চালিয়ে যাব। তখন মনে হয়েছিল মন হয়তো আর সেই কথাগুলো বলবে না। কিন্তু আইপিএলে ছ’টা ম্যাচে ব্যর্থ হওয়ার পরে ফের মনে হল, আবার শুনতে পাচ্ছি সেই কথাগুলো, এ বার আরও জোরে। বুঝলাম সত্যিই সময় এসে গিয়েছে।’

মুম্বাইয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২০০৪ সালে টেস্ট অভিষেক হয় গম্ভিরের। ১২ বছরের টেস্ট ক্যারিয়ারে মোট  ৪১৫৪ রান করেছেন এই বাঁহাতি ওপেনার। ৯টি সেঞ্চুরি আর ২২টি ফিফটি রয়েছে তার ঝুলিতে। তার সেরা ইনিংস ২০৬।

অবশ্য ওয়ানডে অভিষেকটা হয় তার আগের বছর, ২০০৩ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ঢাকায়। ১৪৭ ওয়ানডেতে তার মোট রান ৫২৩৮।

২০০৩ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ওয়ানডেতে ৩৯.৬৮ গড়ে ৫ হাজার ২৩৮ রান করেছেন গম্ভীর। ১১টি সেঞ্চুরির সঙ্গে রয়েছে ৩৪টি হাফসেঞ্চুরি। ২০১১ সালের বিশ্বকাপের ফাইনালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১২২ বলে ৯৭ রানের ইনিংস খেলে ভারতকে শিরোপা জেতাতে সহায়তা করেন তিনি।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটেও একসময় ভারতের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন গম্ভীর। ২০০৭-২০১২ সাল পর্যন্ত ৩৭টি ম্যাচ খেলে ২৭.৪১ গড়ে ৯৩২ রান করেন তিনি। ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৫৪ বলে ৭৫ রানের ইনিংস খেলেছিলেন।পরে শেষ ওভারে নাটকীয়ভাবে ম্যাচটি জিতে যায় ভারত। ওই টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস