ক্যাসিনোর আড়ালে ভিন্ন এক রাত!

ঢাকা, বুধবার   ২২ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪২৬,   ১৬ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

ক্যাসিনোর আড়ালে ভিন্ন এক রাত!

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:২৪ ১১ মার্চ ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

প্রায় দুই হাজার বছর আগে জুয়া খেলার উত্থান। শুরুর দিকে অনিয়ন্ত্রিত জুয়ার আসরের কারণে এসব জুয়া থেকে ক্যাসিনোর উত্পত্তি। বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জুয়ার আসরে চলে ক্যাসিনোর রমরমা ব্যবসা। উড়ানো হয় হাজার হাজার কোটি টাকা। গোটা বিশ্বে অসংখ্য ক্যাসিনো থাকলেও বিশ্বখ্যাত কিছু সেরা ক্যাসিনো রয়েছে।  চলুন জেনে আসি-

দ্য ভ্যালেন্তিয়ান ম্যাকাও, ম্যাকাও, চীন 

বিশ্বে যত ক্যাসিনো রয়েছে দ্য ভ্যালেন্তিয়ান তার মধ্যে অন্যতম। চীনের এই ক্যাসিনোটি জুয়াড়িদের প্রধান আকর্ষণ। আকর্ষণীয় এই ক্যাসিনোটি ভিতর এবং বাহির দুইদিক থেকেই দেখতে অপরূপ। ক্যাসিনোর মার্বেল পাথরে তৈরি লবি আর নান্দনিক আলোকসজ্জা সত্যিই অসাধারণ। রাতে ক্যাসিনোটি ভিন্ন রূপ ধারণ করে। এর ভিতরে আপনি যত দেখবেন ততই বিস্মিত হবেন। প্রতি রাতে এখানে চলে নানা ধরনের রোমাঞ্চকর আয়োজন। ক্যাসিনোটির প্রতিটি খেলার স্পট ভিন্ন আঙ্গিকে তৈরি। পুরো ক্যাসিনোটিতে আগত জুয়াড়িদের অত্যন্ত পছন্দের।

ফক্সউডস রিসোর্ট ক্যাসিনো, কানেক্টিকাট, আমেরিকা 

যুক্তরাষ্ট্রের কানেক্টিকাটের এই ক্যাসিনোটি বিশ্বজোড়া সমাদৃত। বহু সেলিব্রেটি তাদের বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে সেখানে যান। সারা রাত জুয়া খেলার পাশাপাশি এখানে চলে জমজমাট আড্ডা। কানেক্টিকাটের এই ফক্সউড রিসোর্ট ক্যাসিনো পৃথিবীজুড়ে জুয়াড়িদের অন্যতম পছন্দের জায়গা। চারপাশে সবুজের গালিচায় মোড়ানো প্রাকৃতিক মনোমুগ্ধকর পরিবেশে বেষ্টিত এই ক্যাসিনোর গেমিং জোনটি গড়ে উঠেছে ৪.৭ মিলিয়ন বর্গফুটের বিশাল এলাকাজুড়ে।

এমজিএম গ্র্যান্ড ক্যাসিনো, লাসভেগাস

লাসভেগাসে পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম হোটেলে অবস্থিত এই ক্যাসিনো। ১ লাখ ৭১ হাজার ৫০০ বর্গফুটের বিশাল এলাকাজুড়ে নির্মিত এই ক্যাসিনোর গেমিং জোন। এটিই সিন সিটির সবচেয়ে বড় ক্যাসিনো ফ্লোর। এখানে প্রতিদিন ১৩৯টি টেবিলে পোকারসহ বিভিন্ন রকমের জুয়ার আসর বসে। আরো রয়েছে ভিডিও জুজু, প্রোগ্রেসিভ স্লট ও মাল্টি গেম মেমিনসহ জুয়া খেলার নানা উপকরণ। সারা পৃথিবী থেকে ধনকুবেররা আসেন এই ক্যাসিনোতে।

বেল্লাজিও, লাসভেগাস

লাসভেগাসের আরেকটি চমৎকার ক্যাসিনো বেল্লাজিও। নান্দনিক লোকেশনে অবস্থিত এই ক্যাসিনোটি এমজিএম রিসোর্ট মালিকাধীন। এখানে রয়েছে একটি বিখ্যাত ফোয়ারা ঝরনা। যার আশপাশে ওশেইন ১১, দ্য হ্যাংওভার অ্যান্ড টোয়েন্টি ওয়ান, গ্লামারসের মতো আলোচিত মুভির শুটিং হয়েছে। বেল্লাজিও সর্বাধিক আলোচিত এখানকার ক্যাসিনো জোনটির জন্য। অনেকে এটাকে অফিস রুম বলে ডাকেন। এখানে হাই টেবিল লিমিট সুবিধা থাকায় প্রফেশনাল জুয়াড়িরা এই ক্যাসিনোতে বেশি ভিড় জমান। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আগত জুয়াড়িরা এখানে সর্বোচ্চ ৪ হাজার ডলার থেকে ৮ হাজার ডলার পর্যন্ত জুয়ার বাজি ধরতে পারেন। মাঝে মাঝে গেমিং পটস এক মিলিয়ন ডলারও ছাড়িয়ে যায়।

রিও অল স্যুট হোটেল অ্যান্ড ক্যাসিনো, লাসভেগাস 

রিও নাম শুনলেই ব্রাজিলের কথা মনে হওয়ার কথা। আসলে এটি সেই রিও নয়, এই হোটেল-ক্যাসিনোটি বিশ্বের ধনকুবেরদের অবসর সময় কাটানোর আরেকটি জায়গা। রিও অল স্যুট হোটেল অ্যান্ড ক্যাসিনোর মালিক সিজার্স এন্টারটেইনমেন্ট করপোরেশন। এই ক্যাসিনোটি জুয়াড়িদের কাছে ‘দ্য রিও’ নামেই বেশি পরিচিত। এটি লাসভেগাসের অন্যমত আকর্ষণীয় হোটেল। এখানকার রুমগুলোর সবগুলোই স্যুটস হিসেবে বিবেচ্য। স্যুটগুলো ৬০০ থেকে ১৩ হাজার বর্গফুটের হয়ে থাকে। ব্রাজিলের চমৎকার শহর রিও নামানুসারে এই হোটেলটির ক্যাসিনো নাম দেওয়া হয় রিও। পুরো হোটেলটির ডিজাইন আর নকশায় প্রাধান্য পেয়েছে ব্রাজিলের সংস্কৃতি। অনেক সেলিব্রেটি কিংবা বিশ্বের বড় বড় ধনকুবেরের আড্ডার স্থান রিওতে ভিআইপিদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন সুবিধাসহ আলাদা ভিলা।

ওয়াইন, ম্যাকাও, চীন

চীনারা জুয়া খেলতে পছন্দ করে যে হোটেলটি তা না দেখলে বিশ্বাস হবে না। ওয়াইন ম্যাকাও এশিয়ার প্রথম পাঁচতারকা হোটেল যা তৈরি করা হয়েছে লাসভেগাসকে অনুকরণ করে। এটি চীনাদের বিলাসবহুল হোটেল যেখানে আরো রয়েছে রেস্টুরেন্ট, ডিজাইনার শপ, পারলার, স্পা এবং আকর্ষণীয় লেকভিউ। চীনা ধনকুবের তো বটেই, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ধনকুবের, খেলোয়াড়, সেলিব্রেটিদের সমাগমে সারা বছরই মুখরিত থাকে ওয়াইন হোটেল এবং ক্যাসিনো। ২৫ হাজার বর্গফুটের ক্যাসিনোটি ওয়াইন হোটেলের প্রধান আকর্ষণ। এখানে ৩৭৫টি স্লট এবং ২১২টি গেমিং টেবিল রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে

Best Electronics