.ঢাকা, সোমবার   ২২ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ৮ ১৪২৬,   ১৬ শা'বান ১৪৪০

কোহলির মজার আবদারে বিদ্রুপ

 প্রকাশিত: ২২:৫২ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮   আপডেট: ২২:৫৪ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮

কোহলির টস - ছবি: সংগৃহীত

কোহলির টস - ছবি: সংগৃহীত

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে তিনটিতেই হেরেছে ভারত। দলের বাজে পারফর্ম তো আছেই সেইসঙ্গে ভাগ্যও পাশে নেই ভারত অধিনায়কের। এক টেস্ট জিতলেও পাঁচ টেস্টের সবকয়টিতেই টস ভাগ্য কথা বলেনি কোহলির হয়ে।

৭ সেপ্টেম্বর,  শুক্রবার কেনিংটন ওভালে গড়িয়েছে পাঁচ ম্যাচ সিরিজের পঞ্চম ও শেষ টেস্ট। এ দিনও টসে জিতেছে ইংল্যান্ড। টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট। অন্যদিকে সিরিজের পাঁচ ম্যাচে টস হেরে কার্যত হতাশ হয়ে পড়েছেন কোহলি।

তাই টস জিততে অদ্ভুত এক আবদার করে বসলেন হতাশ কোহলি। তার আবদার,  মুদ্রা নিক্ষেপণের দুই পাশেই হেড রাখার! সিরিজের পঞ্চম ও শেষ টেস্টে টস হারার পর এমন আবদারই করে বসেন ভারতীয় অধিনায়ক।

কোহলি বলেন, ‘আমি মনে করি, আমার এমন একটি মুদ্রা দরকার যার দুই পাশেই হেড আছে।’

কোহলির এমন অদ্ভুত মজার আবদারের পরই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শুরু হয়েছে ব্যাপক সমালোচনা। ভারতের হারে সমর্থকরা এমন মজার আবদারকে সহজভাবে নিতে পারেননি।

টুইটারে একজন লিখেছেন, ‘মুদ্রার দুই পাশে হেড দেওয়ার পর আপনি টেল নেবেন,  তাই না? আগে ম্যাচটা জিতুন, শুভ কামনা’।

আরেকজন লিখেছেন,  ‘টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কোহলি টানা ৯ ম্যাচে টস হেরেছে। নিশ্চয় এটা বিশ্বরেকর্ড’! মুজিব শেখ নামে আরেক টুইটার ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘টেল চেষ্টা করেন, তাহলে হেড আসবে’।

মহেন্দ্র সিং ধোনির কাছ থেকে পরামর্শ নেওয়ার তাগিদ দিয়ে আরেকজন লিখেছেন,  ‘টস ও ডিআরএসে (ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম) সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ধোনির থেকে পরামর্শ নাও। সফল হবে’।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এজবাস্টন ও লর্ডস টেস্টে পাত্তাই পায়নি ভারত। সিরিজের প্রথম দুই টেস্টে জো রুটদের কাছে অসহায় আত্মসমর্পণ করে কোহলির দল। প্রথম দুই টেস্টে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে না পারলেও তৃতীয় টেস্টে স্বাগতিকদের ২০৩ রানে হারিয়ে সিরিজে ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দেয় ভারত।

চতুর্থ টেস্টেও প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল ভারত। শেষ পর্যন্ত কোহলি-রাহানের প্রতিরোধ ভেঙেই ৬০ রানে ম্যাচটি জিতে নেয় ইংল্যান্ড। এই ম্যাচে জয়ের ফলে সিরিজ জয়ের স্বাদও পায় স্বাগতিকরা। আর এক ম্যাচ হাতে রেখে ৩-১ ব্যবধানে সিরিজটি জিতে নেয় ইংল্যান্ড।

ডেইলি বাংলাদেশ, এমএইচ/সালি