ঢাকা, শনিবার   ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯,   ফাল্গুন ১০ ১৪২৫,   ১৭ জমাদিউস সানি ১৪৪০

কোস্টগার্ডের ভূয়সী প্রশংসায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ

 প্রকাশিত: ১৯:৫৩ ১১ জুলাই ২০১৮  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

সমুদ্রপথে মানবপাচার, মাদক ও চোরাচালান রোধে কোস্টগার্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে এশিয়ার ১৮টি দেশের কোস্টগার্ডের সমন্বয়ে দুই দিনব্যাপী এক সভার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন।

সমুদ্রপথে মানবপাচার, মাদক ও চোরাচালান রোধে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের আয়োজনে দুই দিনব্যাপী এক সম্মেলন ঢাকায় শুরু হয়েছে। এতে ভারত, চীন, অস্ট্রেলিয়াসহ ১৮টি দেশের ৪১ জন প্রতিনিধি অংশ নিচ্ছেন।

মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে সারা বিশ্বে সন্ত্রাসবাদ, মাদকদ্রব্য পাচার, চোরাচালান, অবৈধ অস্ত্র মানবপাচার প্রতিরোধ ও অবৈধ মৎস্য আহরণসহ সমুদ্রে যারা বিভিন্ন ধরনের অপরাধ করে আসছে, তাদেরকে কঠোর হাতে প্রতিরোধ করছে কোস্টগার্ড।

‘সমুদ্রে কোস্টগার্ডের ভূমিকার প্রশংসা না করে উপায় নেই। তারা সমুদ্রে মাদক চোরাচালান ও যে কোনো ধরনের অপরাধ ঠেকাতে নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তারা সমুদ্র রক্ষায় সর্বদায় প্রস্তুত থাকে।’

সমুদ্রসম্পদ নির্ভর ব্লু-ইকোনোমি নিয়েও কোস্টগার্ডের প্রশংসা করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ব্লু-ইকোনমির গুরুত্ব অনুধাবন করে এই অঞ্চলের সমুদ্রসীমার নিরাপত্তায় কোস্টগার্ড তৎপর রয়েছে। ব্লু-ইকোনোমিতে বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের ভূমিকা প্রশংসনীয়।

‘ব্লু -ইকোনোমি প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তা অনুধাবন করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রথম সমুদ্রসীমানা দাবি করেন। পরবর্তীতে বর্তমান সরকার মিয়ানমার ও ভারত থেকে বিশাল সমুদ্র জয় করে। যার ফলে ব্লু-ইকোনোমি দেশের অর্থনীতির একটি অসাধারণ ক্ষেত্র সৃষ্টি করেছে।’

এ বিষয়টি মাথায় রেখে নিরাপদ মেরিটাইম পরিবেশের জন্য সব দেশকে একসঙ্গে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কোস্টগার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার অ্যাডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী বলেন, এই সভার মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের সমুদ্র ও উপকূলবর্তী অঞ্চলে উদ্ধার তৎপরতা, পরিবেশ দূষণ প্রতিরোধ, অবৈধ কর্মকাণ্ড প্রতিরোধসহ পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/ এসআই