কোকেন বিতর্কে ম্যারাডোনার স্বীকারোক্তি

.ঢাকা, বুধবার   ২৪ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ১০ ১৪২৬,   ১৮ শা'বান ১৪৪০

কোকেন বিতর্কে ম্যারাডোনার স্বীকারোক্তি

 প্রকাশিত: ১৯:৩৯ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৯:৩৯ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ছবি- সংগৃহীত

ছবি- সংগৃহীত

আবারো কোচিংয়ে ফিরছেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তী ম্যারাডোনা। এতো পুরনো কথা।  ২০১৬ সালে দ্বিতীয় বিভাগে অবনমন হওয়া মেক্সিকান ক্লাব দোরাদোসকে প্রথম বিভাগে তোলার দায়িত্ব এখন লিওনেল মেসির পূর্বসূরির। আর এই দায়িত্ব নিয়ে বেশ আশাবাদীও তিনি। ক্লাব পরিচিতি এবং  নতুন জার্সি উন্মোচন অনুষ্ঠানে ক্লাব নিয়ে তো কথা বললেনই। সেইসঙ্গে নিজের অতীত নিয়েও মুখ খুলেছেন ৮৬’র বিশ্বকাপজয়ী। 

মেক্সিকোর সুলিসানের সঙ্গে মাদকের সম্পর্ক থাকায় আলোচনায় ওঠে এসেছে ম্যারাডোনার কোকেন আসক্তি। দীর্ঘ সময় এই আসক্তির কারণে ভুগতে হয়েছে তাকে। ১৯৯১ সালে ইতালিতে ড্রাগ টেস্টে কোকেনের জন্য ধরা পড়ায় ১৫ মাসের জন্য ফুটবল থেকে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন ম্যারাডোনা। অন্যদিকে নতুন ক্লাব দেরাদোসের অবস্থান সুলিসানে। যে কারণে দেরাদোসে ম্যারাডোনার আসা নিয়েও কিছুটা বিতর্ক তৈরি হয়েছে।  

১৯৯৪ বিশ্বকাপে ইফিড্রিন টেস্টেও ম্যারাডোনা পাশ করতে পারেননি। এর ফলে বিশ্বকাপই খেলতে পারেননি তিনি। অনেকবার অ্যালকোহল ও কোকেন আসক্তির কথা স্বীকার করেছেন তিনি। গত রাশিয়া বিশ্বকাপেও তার কোকেন গ্রহণের প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল।
  
কোকেন গ্রহণ প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে ম্যারাডোনা বলেন, অসুস্থ থাকাকালীন আমি যা হারিয়েছি তা আমি দোরাদোসকে দিতে চাই। আমি ১৪ বছর অসুস্থ ছিলাম। এখন আমি সূর্য দেখতে চাই, আমি রাতে বিছানায় যেতে চাই। আমি এমনকি বিছানায় যেতাম না। আমি এটাও জানতাম না যে বালিশ কেমন। এজন্যই আমি দোরাদোসের অফার গ্রহণ করেছি। মানুষ অনেককিছু বলতে পারে, কিন্তু আমি নিজে নিচে নেমে যাচ্ছিলাম। আমি নিজেই নিজেকে খেয়ে ফেলছিলাম। আমি ফুটবল থেকে পিছিয়ে যাচ্ছিলাম। কিন্তু এখন,সব পাল্টে গেছে।  ধন্যবাদ আমার কন্যাদের। 

এক পর্যায়ে আবেগতাড়িত কণ্ঠে ম্যারাডোনা বলেন, ‘আমি কপর্দকশূন্য হয়ে গিয়েছিলাম, আমি আবার কাজে ফিরলাম। আমি যখন কোমায় ছিলাম তখন আমার চার বছর বয়সি কন্যা চাদর টেনে আমাকে জাগাতে চেষ্টা করতো। 

নতুন দায়িত্ব নিয়ে আশাবাদী ম্যারাডোনা বলেন, আমি এখানে (দোরাদোসে) দীর্ঘদিন কাটাতে চাই। ফুজাইরাহতে যেমন করেছি, আমি এখানে আমার হৃদয় উজাড় করতে এসেছি। সেখানে আমি প্রতিদিন ৩০০ কিলোমিটার ড্রাইভ করে কাজে যেতাম। যখন আপনি জানবেন যে ক্লাবের কোনো শিরোপা নেই,  নিশ্চিত হতে হবে তাদের উত্তরণ নিয়ে। 

মেক্সিকোর দ্বিতীয় বিভাগের লিগে ১৩তম অবস্থানে আছে দোরাদোস। গত ছয় বছর ধরে শিরোপাশূন্য এই ক্লাবকে প্রথম বিভাগে তোলার মতো কঠিন কাজ হাতে নেওয়া ম্যারাডোনা বলেন, এখন আমাদের একটি হাতিকে নিজেদের কাঁধে তুলে নিতে হবে এবং এটা সহজ নয়।
'আমি লুকাই না, মারি না এবং মিথ্যা বলি না।

মেক্সিকোর দোরাদোসের দায়িত্ব নেয়ার আগে বেলারুশের ক্লাব দিনামো ব্রেস্টের প্রেসিডেন্ট ছিলেন ম্যারাডোনা। তারও আগে কোচ হিসেবে আর্জেন্টিনা, আল-ওয়াসল, রেসিং এবং দেপোর্তিভো ম্যান্দিউ’র মতো ক্লাবের দায়িত্ব সামলেছেন তিনি। যদিও কোচ হিসেবে এখনো সফল হননি এই কিংবদন্তী। এখন দেখার বিষয় দোরাদোসে কতদিন সফল হতে পারেন। কেননা, ১৯৮৬ এর মেক্সিকোতেই নিজের সেরা অর্জন বিশ্বকাপ জিতেছিলেন তিনি। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ/এসআই