Alexa কেসিসিতে আসছে ৬৩৭ কোটি টাকার বাজেট

ঢাকা, শনিবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৬ ১৪২৬,   ২১ মুহররম ১৪৪১

Akash

কেসিসিতে আসছে ৬৩৭ কোটি টাকার বাজেট

 প্রকাশিত: ১২:৩৬ ৩০ আগস্ট ২০১৮   আপডেট: ১২:৪০ ৩০ আগস্ট ২০১৮

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর খুলনা সিটি কর্পোরেশনের (কেসিসি) বর্তমান মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনি’র নেতৃত্বাধীন পরিষদের মেয়াদ শেষ হবে।

রইমধ্যে গত ৫ জুলাই প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে নব-নির্বাচিত মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকসহ ৪১ জন কাউন্সিলর শপথ গ্রহণ করেছেন।

আগামী মাসের মাঝামাঝিতে ২০১৮-১৯ অর্থ-বছরের জন্য ৬৩৭ কোটি ৯ লাখ টাকার প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা করতে যাচ্ছে খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি)। বর্তমান মেয়র মনিরুজ্জামানের শেষ বাজেট হওয়ায় এবারের বাজেট ঘোষণা বিলম্ব হচ্ছে। বিগত বছর গুলোতে জুন-জুলাই-আগস্টের মধ্যে বাজেট ঘোষণা হলেও এবার সেপ্টেম্বরে বাজেট ঘোষণা করা হবে। এ নিয়ে সিটি কর্পোরেশন ও নগরবাসীর মাঝে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। তবে পূর্বের অর্থ-বছরের তুলনায় এবার বাজেটের আকার বাড়ছে।

কর্পোরেশন সূত্র জানায়, বাজেট ঘোষণার আগে  ৬ সেপ্টেম্বর কেসিসির সাধারণ সভায় বাজেট ঘোষণার দিনক্ষণ নির্ধারণ হবে। ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে প্রস্তাবিত বাজেট ছিল ৪৪০ কোটি ৭৯ লাখ ৫৮ হাজার টাকা। পরে তা সংশোধিত আকারে দাঁড়িয়েছে ২৬৯ কোটি ৯১ কোটি ৯৪ হাজার টাকা। বাস্তবায়ন হয়েছে শতকরা ৬১ দশমিক ২৩ ভাগ। নানা পরিকল্পনা নিয়ে কর্পোরেশনে ২০১৮-১৯ অর্থ-বছরের বাজেট প্রস্তুতির কাজ শেষ করেছে।

আয়ের খাত: বাজেটের রাজস্ব তহবিল থেকে আয় ধরা হয়েছে ১৮১ কোটি ৮৯ লাখ ৭৮ হাজার টাকা। এর মধ্যে প্রারম্ভিক স্থিতি ৪৭ লাখ ৬৭ হাজার টাকা এবং রাজস্ব খাত থেকে মোট আয় ধরা হয়েছে ১৩৪ কোটি ২২ লাখ ৬৮ হাজার টাকা। বাকি ৪৫৫ কোটি ২০ লাখ টাকার মধ্যে উন্নয়ন তহবিলের সরকারি অনুদান (২য় অংশ) থেকে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৭১ কোটি ৩১ লাখ টাকা এবং  বিশেষ প্রকল্প (৩য় অংশ) অনুদান প্রাপ্তি খাত থকে আয় ধরা হয়েছে ১৮৩ কোটি ৮৮ লাখ টাকা।

ব্যয়ের খাত: রাজস্ব তহবিল থেকে সংস্থাপন ব্যয় ধরা হয়েছে ১৮১ কোটি  ৮৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে সংস্থাপন ব্যয় ১০৯ কোটি ৬৭ লাখ টাকা, উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণ অর্থাৎ নগরীর বিভিন্ন রাস্তা, ড্রেন ও অবকাঠামোগত সুবিধাধীন উন্নয়ন ব্যয় ৬৯ কোটি ৬৫ লাখ টাকা, মূলধন হিসাব ৩০ লাখ টাকা এবং সমাপনী স্থিতি ২ কোটি ২৬ লাখ টাকা। এছাড়া সরকারি অনুদান (২য় অংশ) বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) সরকারি অনুদান ৪৬ কোটি ৩১ লাখ টাকা, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বিশেষ থোক ২৫ কোটি ও জাতীয় এডিপিভুক্ত/প্রস্তাবিত প্রকল্পে সরকারি অনুদান ২০০ কোটি টাকা। বিশেষ প্রকল্প ন্যাশনাল আরবান প্রোপার্টি রিডাকশন প্রোগাম, বাংলাদেশ মিউনিসিপ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফান্ড প্রকল্প, নগর অঞ্চল উন্নয়ন প্রকল্প পার্ট-২, নিরাপদ পথ খাবার, আরবান পাবলিক এন্ড এনভারমেন্টাল হেলথ সেক্টর ডেভেলপমেন্ট প্রকল্প, সিটি ওয়ার্ড ইনক্লুসিভ স্যানিটেশন এনগেজমেন্ট ইন খুলনা, আরবান ম্যানেজমেন্ট অব ইন্টারনাল মাইগ্রেশন ডিউ টু ক্লাইমেন্ট চেঞ্জ ইন খুলনা সিটি কর্পোরেশন, রিজিওনাল ইনক্লুসিভ আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রকল্প, সোলার স্ট্রীট লাইট প্রকল্প ও খালিশপুর কলেজিয়েট স্কুল নির্মাণ, এনগেজিং মাল্টি সেক্টরাল পাটনার্স ফর ক্রিয়েটিং অপরচুনিটিজ ইমপ্রভিং ওয়েলবিয়িং এন্ড রিলিজিং এন্ড রিলিজিং রাইটস অব দি আরবান পুত্তর প্রজেক্ট ও লোকাল গভর্ণেন্স ফর চিলড্রেন প্রকল্পে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১৮৩ কোটি টাকা। তবে এবার জলাবদ্ধতা নিরসন ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা উন্নয়নে ৮৪৩ কোটি এবং ধ্বংসপ্রাপ্ত সড়ক মেরামত ও উন্নয়নে ৬০৮ কোটি টাকার দু’টি প্রকল্পের প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। যা সবুজ পাতায় থাকবে। অনুমোদন পেলে পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হবে।

কর্পোরেশনের বাজেট কাম একাউন্টস অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ডা. মো. রেজাউল করিম বলেন, ৬ সেপ্টেম্বর সাধারন সভা অনুষ্ঠিত হবে। ওই সভায় বাজেট ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ করা হবে। তবে সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে ঘোষণা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরআর