কৃষকদের দিনবদলে মাঠ স্কুল

ঢাকা, শনিবার   ২৫ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪২৬,   ১৯ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

কৃষকদের দিনবদলে মাঠ স্কুল

মাগুরা প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: ১৫:৫৬ ৭ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৫:৫৬ ৭ ডিসেম্বর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

মাগুরার বিভিন্ন গ্রামে কিষাণ-কিষাণিদের হাতে-কলমে চাষাবাদ সম্পর্কে শিক্ষাদানে আইএফএমসি কৃষক মাঠ স্কুল গঠন করেছে। এটি পরিচালনা করছে জেলা ও উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলার চারটি উপজেলার মধ্যে তিনটি উপজেলায় এ স্কুলের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এর মধ্যে শ্রীপুর উপজেলায় ২০১৬ সালের মে মাস থেকে পাঁচটি স্কুলে কার্যক্রম শুরু হয়। এছাড়া একই বছরের ১৭ই এপ্রিল মহম্মদপুর উপজেলা ছয়টি ও ১৯ এপ্রিল থেকে শালিখা উপজেলায় পাঁচটিতে কার্যক্রম শুরু হয়।

সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, কৃষক-কৃষাণীরা ক্লাশ করছেন। অ্যান্টিগ্রেটেড ফার্ম ম্যানেজমেন্ট ক্রপ কৃষক মাঠ স্কুলের জাহিদুল ইসলাম তাদের বিভিন্ন বিষয়ে পাঠদান করছেন। সেখানে ২৫ জন কৃষক-কৃষাণী মনোযোগ দিয়ে পাঠ গ্রহণ করছেন।   

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শ্যামল কুমার বিশ্বাস বলেন, শ্রীপুর উপজেলায় মোট পাঁচটি আইএফএমসি কৃষক মাঠ স্কুল রয়েছে। এর মধ্যে উপজেলার সদর ইউপির  চন্দ্রপাড়া ও সারঙ্গদিয়া, সব্দালপুর ইউপির নোহাটা ও সোনাতুন্দি এবং শ্রীকোল ইউপির ছোনগাছা গ্রামে আইএফএমসি কৃষক মাঠ স্কুলে কৃষক-কৃষাণীদের হাতে-কলমে শিক্ষাদান করা হয়ে থাকে। প্রতি স্কুলের অধিনে ২৫টি পরিবারের পুরুষ ও মহিলা সদস্য এ স্কুলে শিক্ষা গ্রহণ করে থাকেন। এখানে পুরুষ সদস্যদের ধান, পাট, মৎস্য ও সবজি বিষয়ে এবং মহিলাদের ছাগল পালন, হাঁস মুরগী পালন, গরু মোটাতাজাকরণ প্রভৃতি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। সেই সঙ্গে প্রতি কৃষক-কৃষাণীকে প্রতি ক্লাশের জন্য ৭০ টাকা হারে যাতায়াত ভাড়া দেয়াসহ বিভিন্ন উপকরণ দেয়া হয়। 

এসব স্কুলগুলো পরিচালনার জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের কর্মকর্তা, শিক্ষিত ও মেধাবী কৃষকদের সমন্বয়ে একটি কমিটি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এর মধ্যে মনিটরিং কর্মকর্তা হিসেবে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাকে ট্যাগ ও কৃষকদের মধ্য থেকে অধিক শিক্ষিত দুজনকে সহায়তাকারী ফারমার্স ট্রেইনার হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। 

শ্রীপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আতিকুল ইসলাম বলেন, স্কুলগুলোতে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কৃষক-কৃষাণীদের পরিকল্পিতভাবে চাষাবাদের যাবতীয় বিষয়ে শিক্ষা দেয়া হচ্ছে। এর ফলে কৃষকরা সাশ্রয়ী খরচে চাষাবাদ করে অধিক লাভবান হতে পারছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর

Best Electronics