Alexa কিশোরীর ইজ্জতের মূল্য দুই কাঠা জমি!

ঢাকা, শনিবার   ২০ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ৫ ১৪২৬,   ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪০

কিশোরীর ইজ্জতের মূল্য দুই কাঠা জমি!

 প্রকাশিত: ১৮:০৫ ২২ অক্টোবর ২০১৭  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের গৌরীপুরে ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে সজীব নামে এক বখাটের বিরুদ্ধে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর নির্যাতিতাদের পরিবারের মুখ বন্ধ রাখতে ভয়ভীতির পাশাপাশি দুই কাঠা জমি দেওয়ার বিধান দিল গ্রামের প্রভাবশালীরা। অভিযুক্ত ধর্ষকের দাদা সাবেক মেম্বার এ রায় দেন।

ঘটনার সূত্রপাত ১৬ অক্টোবর (‌সোমবার)‌ ময়মনসিংহের গৌরীপুরের রামগোপালপুর ইউনিয়ন এলাকায় নিজের বাড়িতে একা ছিলেন ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী। সেই সুযোগে সজিব মন্ডল নামে এক যুবক ওই কিশেরীকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ। এই ঘটনার নির্যাতিতা তার পরিবারকে সব ঘটনা জানায়। ঘটনার দিন রাতেই দুই পরিবারে মধ্যে সব জানাজানি হয়ে যায়।

অভিযুক্ত সজিব মন্ডল প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান হওয়ায় গ্রামের কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস দেখাইনি।

অভিযুক্ত সজিব স্থানীয় শাসকদলের নেতা আব্দুল কাদির মন্ডলের ছেলে এবং গৌরীপুর উপজেলার রামগোপালপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের প্রাক্তন ইউপি সদস্য লাল মিয়া মন্ডলের নাতি।

আরো পড়ুন>>>আখ ক্ষেতে নিয়ে কিশোরী ধর্ষণ, গ্রেফতার ২ 
আরো পড়ুন>>>মহিলা মাদরাসার শিক্ষিকাকে গণধর্ষণ

অভিযুক্ত প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান হওয়ায় নির্যাতিতার পরিবারকে সালিশি সভার জন্য ডেকে পাঠান।

অভিযুক্তের দাদা লাল মিয়া মন্ডল ঘটনাটি যাতে পুলিশের কানে না যায় ঘটনার দিন রাতেই কিশোরীর পরিবারদের ডেকে নানাভাবে ভয়ভীতি দেখান। গ্রামের অন্যান্য মোড়লদের সঙ্গে নিয়ে সালিশি সভায় তিনি নির্যাতিত কিশোরীর ইজ্জতের মূল্য নির্ধারণ করেন দুই কাঠা জমি।

কিশোরীর নামে দুই কাঠা জমি দিয়ে লিখিয়ে নেয় ধর্ষণের মতো কোনো ঘটনাই ঘটেনি।

মধ্যযুগীয় বর্বরতা কোনোভাবে চাপা যায় না। সারা গ্রামে জানাজানি হয়ে যায়। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম মারফত রামগোপালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান থেকে থানার ওসি পর্যন্ত খবর পৌঁছায়। কিন্তু এরপরও অভিযুক্ত সজিব মন্ডল ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি স্থানীয় প্রসাশন।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, গৌরীপুর থানার ওসি জানিয়েছেন, এই বিষয় কোনো অভিযোগ এলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নির্যাতিতার পরিবার জানায়, ‘‌আমরা গরিব এর থেকে বেশি আর কিভাবে বিচার পাব। মেয়ের নামে জমি লিখে দিয়েছে। এখন কিছু করলে আমাদের সমস্যা আরো বাড়বে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরকে/এমএইচএ/এসআই