Alexa কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকি

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৬ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ১ ১৪২৬,   ১২ জ্বিলকদ ১৪৪০

কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকি

 প্রকাশিত: ১৬:৪৭ ২১ জুলাই ২০১৭  

কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার হুমকি দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। মোবাইল ফেনে গত ১৯ জুলাই রাতে তাকে দুই দফা হত্যার হুমকি দেয়া হয়। এ ছাড়া তার গাড়িতে হামলা করা হবে বলেও হুমকি দেয়া হয়। এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। জিডিতে উল্লেখ করা হয়, শহরের ওয়ালী নেওয়াজ খান কলেজের সমাজকর্ম বিভাগে ২ জন প্রভাষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেয়া হলে ২০১৫ সালের জুলাই মাসে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. জিল্লুর রহমানের পুত্রবধূ শাহীনূর নাহার হাসি এ পদের জন্য আবেদন করেন। কিন্তু কলেজ পরিচালনা কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর নতুন কমিটি নিয়ম না মেনে ২০১৬ সালে ২ জনের পরিবর্তে ৫ জন প্রভাষক নিয়োগ দেন। কিন্তু শাহীনূর নাহার হাসি পরীক্ষায় প্রথম হলেও তাকে বাদ দেয়া হয়। শাহীনূর নাহার হাসি শিক্ষা সচিবের কাছে একটি অভিযোগ করেন। গত ১৯ মে রাত ৯টা ৫৯ মিনিটে ০১৯১৬৭৪৬৯৭৬ নাম্বার থেকে জেলা পরিষদের চেয়ারমান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমানের ০১৬১৬০১৮৬৭৮ নাম্বারে একটি ফোন আসে। ফোন রিসিভ করার পর অজ্ঞাত পরিচয়ের দুর্বৃত্ত তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে বলে যে ‘আগামীকালের মধ্যে তোর পুত্রবধূ অভিযোগ প্রত্যাহার করে না নিলে তোকে এবং তোর পরিবারকে হত্যা করা হবে। আগামীকাল বাইরে গাড়ি নিয়ে বের হলে গাড়িতে হামলা করে হত্যা করা হবে।’ অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান ফোন রেখে দেয়ার কিছুক্ষণ পর রাত ১০টা ১৬ মিনিটে ০১৬৮৯০৯০০৯ নাম্বার থেকে আবারও তার কাছে ফোন করা হয়। আগের বার ফোন রেখে দেয়ায় জিল্লুর রহমানকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করা হয়। অভিযোগ প্রত্যাহার করে না নিয়ে জিল্লুর রহমান ও তার পুত্রবধূকে প্রকাশ্যে তুলে নিয়ে যাওয়া হবে বলেও হুমকি দেয়া হয়। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকে কটাক্ষ করে বলা হয় ‘তুই ভাবিসনা তোর বাবা আবদুল হামিদ তোকে রক্ষা করবে।’ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জিল্লুর রহমান জানান, রাতেই বিষয়টি পুলিশ সুপারকে জানানো হয়। পরে থানায় জিডি করি। কিশোরগঞ্জ মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খোন্দকার শওকত জাহান জানান, হুমকিদাতাদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার করতে কাজ চলছে। তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে অচিরেই হুমকিদাতাদের গ্রেফতার করা হবে। ডেইলি বাংলাদেশ/আরকে