Alexa কসবার সীমান্ত হাটে অচলাবস্থা

ঢাকা, সোমবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২৫ ১৪২৬,   ১২ রবিউস সানি ১৪৪১

কসবার সীমান্ত হাটে অচলাবস্থা

 প্রকাশিত: ১৯:০২ ৯ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৯:০২ ৯ নভেম্বর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

দিনদিন অচল হয়ে পড়ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার কমলাসাগর-তারাপুর সীমান্ত হাট। ক্রেতা না থাকায় লাভের মুখ দেখছেন না বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা। তবে তুলনামূলকভাবে অনেকটাই লাভবান হচ্ছে ভারতীয়রা।

ভারতীয়রা হাটে আসার অতিথি কার্ড সরবরাহ বন্ধ করে দেয়ার পর অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা যেকোনো সময় ধর্মঘট ডাকতে পারে।

ভারতীয়দের ব্যবসাও মন্দ ছিলো না। কিন্তু প্রভাবশালী রাজনৈতিক মহল হাটে আসতে দিচ্ছে না বিক্রেতাদের। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকেও জানিয়েছেন দুই দেশের ব্যবসায়ীরা।

২০১৫ সালের ৬ জুন কমলাসাগর-তারাপুর সীমান্ত হাটের উদ্বোধন হয়। দুই দেশের এক একর ৫০ শতক জায়গা জুড়ে প্রতি রোববার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বসে হাটটি। সীমান্ত হাটের পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে বসবাসকারীরা নির্ধারিত কার্ড সংগ্রহ করে এ হাটে আসতে পারেন।

আগে বাংলাদেশ ও ভারত থেকে যেখানে এক হাজার ক্রেতা আসতেন এখন সেখানে আসছেন মাত্র ২০০ জন।

হাটে ঢুকতেই দেখা যায়, বাংলাদেশি পণ্য সাজিয়ে বসে আছেন ব্যবসায়ীরা। তবে ভারতীয়দের শেডগুলো ফাঁকা। হাটে এসেছিলেন দুই দেশের গুটিকয়েক ক্রেতা।

বাংলাদেশি ক্রেতা নায়মা জান্নাত বলেন, ভারতীয় পণ্য কেনার আসায় হাটে ঢুকি। কিন্তু ভেতরে এসে ভারতের কোনো ব্যবসায়ীকে চোখে পড়েনি। তাই কিছুক্ষণ ঘুরে চলে যাবো।

সীমান্ত হাটের বাংলাদেশি ব্যবসায়ী পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি মো. সালাউদ্দিন শাহীন বলেন, বিনা কারণে কোনো ধরণের আগাম ঘোষণা ছাড়াই ভারতীয় ব্যবসায়ীরা হাটে আসা বন্ধ করে দিয়েছে।

কসবার ইউএনও হাসিনা ইসলাম বলেন, সীমান্ত হাটে ভারতীয় ব্যবসায়ীদের না আসার বিষয়টি জানতে পেরেছি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবো।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর