কলেজের ঝুঁকিপূর্ণ সীমানা প্রাচীর

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৪ ১৪২৬,   ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

কলেজের ঝুঁকিপূর্ণ সীমানা প্রাচীর

এম. সুরুজ্জামান, নালিতাবাড়ী (শেরপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:২০ ২৪ মে ২০১৯   আপডেট: ১৭:২১ ২৪ মে ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

শেরপুরের নালিতাবাড়ী পৌর শহরের নালিতাবাড়ী শহীদ আব্দুর রশীদ ডিগ্রি মহিলা কলেজের সীমানা প্রাচীরটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এটিকে এখন বাঁশের খুঁটি দিয়ে ঠেক দিয়ে দাঁড় করে রাখা হয়েছে। যে কোনো সময় প্রাচীরটি ধসে পড়তে পারে। 

পুরোনো এ সীমানা প্রাচীরের প্রায় ২০০ ফুট হেলে যাওয়ায় দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, উপজেলা পোস্ট অফিসসহ ১০ গ্রামের মানুষ পাশের রাস্তা দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছেন। দ্রুত সীমানা প্রাচীরটি সংস্কারের ব্যবস্থা না করলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

নালিতাবাড়ী শহরের প্রাণ কেন্দ্রে ১৯৯৬ সালে শহীদ আব্দুর রশীদ ডিগ্রি মহিলা কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়। এর বেশ কয়েক বছর পর তারাগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় সড়কের পাশে কলেজ কর্তৃপক্ষ ৮ ফুট উচ্চতার প্রায় ২০০ ফুট লম্বা সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করে। কিন্তু দীর্ঘদিনেও সীমানা প্রাচীরটি সংস্কার না করায় তা বর্তমানে হেলে পড়েছে। কয়েকটি বাঁশের খুঁটি দিয়ে দেয়ালটিকে ঠেক দিয়ে রাখা হয়েছে।

তারাগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বজলুর রশীদ জানান, শহীদ আবদুর রশীদ ডিগ্রি মহিলা কলেজের সীমানা প্রাচীরের পাশের পথ দিয়ে শিক্ষার্থীসহ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ প্রতিদিন যাতায়াত করেন। প্রাচীরটি যে কোনো সময় ধসে পড়তে পারে। এতে বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে।

গোবিন্দ নগর গ্রামের শিক্ষার্থী ফারিহা ইয়াসমীন জানান, প্রতিদিন ভয় নিয়ে এ পথটুকু অতিক্রম করে স্কুলে যান। পথচারীরাও জানান একই কথা।

শহীদ আবদুর রশীদ ডিগ্রি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা বলেন, অধ্যক্ষ হিসেবে সীমানা প্রাচীরটি ভেঙে নতুনভাবে করার এখতিয়ার আমার নেই। তাই প্রাচীরটি নির্মাণের জন্য আমি কলেজ গভর্নিং বডির প্রতিটি সভায় উত্থাপন করি। কিন্তু তারা কেউ আমার কথায় কান দেন না। 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ