Alexa কলেজছাত্রের প্রেমে মজেছেন হিজড়া!

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৪ নভেম্বর ২০১৯,   কার্তিক ২৯ ১৪২৬,   ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

কলেজছাত্রের প্রেমে মজেছেন হিজড়া!

জয়পুরহাট প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৩০ ৪ নভেম্বর ২০১৯  

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

দেড় বছর আগে পরিচয়। সেই পরিচয় থেকেই প্রেম। তবে কোনো নারী-পুরুষে নয়। তৃতীয় লিঙ্গের স্বীকৃতি পাওয়া এক হিজড়ার সঙ্গে এক তরুণের। 

জয়পুরহাট শহরের বারিধারার ঝুমকা হিজরা ও সদরের ঘোনাপাড়ার খলিলুর রহমানের ছেলে শিহাব উদ্দীনের গড়ে ওঠা এমন প্রেমের সম্পর্কে বেশ বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে ওই তরুণের পরিবার ও এলাকাবাসী।

হিজরা ঝুমকা জানান, দেড় বছর আগে বটতলী তুলশী গঙ্গা নদীর পাড়ে শিহাব উদ্দীনের সঙ্গে প্রথম পরিচয়। সেই পরিচয় থেকে ভালো লাগা। তারপর ধীরে ধীরে সেই ভালো লাগা পাকাপোক্ত প্রেমে রূপ নেয়্ তখন শিহাব আইডিয়াল স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র ছিল। এসএসসি পাশ করার পর তার সম্পূর্ণ খরচে শিহাব রাজশাহীর বরেন্দ্র কলেজে তাকে ভর্তি হয়। গত দেড় বছরে তার এমন চাহিদা নেই, যা তিনি পূরণ করেননি। বিষয়টি তার বাবাও জানতেন। তার বাবাও তার কাছ থেকে দুই মাস আগে জমি কেনার কথা বলে ৫০ হাজার টাকা নিয়ে যায়।

পরবর্তীতে গত মাসের প্রথম সপ্তাহে গরু কেনার কথা বলে আরো ৫০ হাজার টাকা চাইলে, সেই প্রস্তাবে রাজি হননি তিনি। তারপর থেকে শিহাবের বাবা তার ছেলেকে তার কাছ থেকে দূরে রেখেছেন। এক মাস ধরে শিহাবের ২-৩টা সিমই বন্ধ থাকায় তার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করতে পারেননি। এতে করে সে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন। অবশেষে শনিবার বিকেলে শিহাবের বাড়িতে সেসহ বেশ কয়েকজন হিজড়া সঙ্গীদের নিয়ে শিহাবের খোঁজ করেন।

এ সময় তার পরিবারের সদস্যরা বম্বু ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বারসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের ডেকে একটি গ্রাম্য সালিশ বৈঠকের আয়োজন করেন। সেখানে সে দেড় বছর ধরে শিহাব ও তার পরিবারের পেছনে যত টাকা ব্যয় করেছেন, সেগুলো বর্ণনা করেন এবং তার সঙ্গে কিছু অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি ও ভিডিও দেখান। পরে তারা হিজড়া ও পুরুষের সম্পর্ক কিছুতেই মেনে নিতে না পেরে তার সঙ্গে ৮০ হাজার টাকা দিয়ে এক প্রকার রফাদফা করেন। 

ঝুমকা কষ্ট নিয়ে বলেন, ৮০ হাজার টাকা দিয়ে আমার দেড় বছরের সম্পর্কের বিচ্ছেদ ঘটিয়েছে এই শিহাবের পরিবার। তবে একটা কথাই বলতে চাই আমরা হিজড়া হলেও রক্তে মাংসে গড়া মানুষ, আমাদের মনেও প্রেম-ভালোবাসা আছে। 

এদিকে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে শিহাবের বাবা খলিলুর রহমান জানান, শুনেছি তার ছেলের সঙ্গে ঝুমকা হিজড়ার সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। তবে টাকা লেনদেনের বিষয়টি সত্য নয়।
 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ