ঢাকা, সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮
ডেইলি বাংলাদেশের অডিও সার্ভিস চালু
শিরোনাম:
কার্গো বিমানে পণ্য পরিবহনে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করলো যুক্তরাজ্য ১২৭ ইউনিয়ন ও নয় পৌরসভায় ভোট ২৯ মার্চ চা শ্রমিকদের আবাসন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে বাগান মালিকদের কাছে থাকবে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে বিএনপি রাজশাহীর তানোরে বিস্ফোরকসহ ৩ জঙ্গি আটক
শিরোনাম:
কার্গো বিমানে পণ্য পরিবহনে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করলো যুক্তরাজ্য ১২৭ ইউনিয়ন ও নয় পৌরসভায় ভোট ২৯ মার্চ চা শ্রমিকদের আবাসন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে বাগান মালিকদের কাছে থাকবে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে বিএনপি রাজশাহীর তানোরে বিস্ফোরকসহ ৩ জঙ্গি আটক...

কর্ণফুলী দখল করে বরফ কল

 জীবন মুছা, চট্টগ্রাম ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:০১, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

৫৭ বার পঠিত

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদী দখল করে চলছে বরফ কল নির্মাণের কাজ। গত কয়েকদিন ধরে একটি মহল স্ক্যাবেটর দিয়ে নদীর পাড় কেটে মাটি সমান করছে।

নগরীর নতুন ফিশারি ঘাট এলাকায় রাত দিন সমানে চলছে স্ক্যাবেটর দিয়ে মাটি ভরাটের কাজ।

এমনিতেই দখল আর দুষণে অনেকটা সরু হয়ে গেছে চট্টগ্রামের প্রাণপ্রবাহ কর্ণফুলী নদী। তারপরও থেমে নেই দখল। প্রতিনিয়ত চলছে বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান আর সমিতির নামে নদী ভরাট। দিন দুপুরে এভাবে নদী ভরাট করা হলেও এ নিয়ে কোনো পক্ষের মাথা ব্যাথা নেই।

সরেজমিন দেখা গেছে স্ক্যাবেটর দিয়ে মাটি কেটে নদীর পাড় ভরাট করা হচ্ছে। উপস্থিত মাঝি মাল্লারা জানান, কারা মাটি কেটে নদী ভরাট করছে তা জানি না। শুনেছি এখানে বরফ কল বানানো হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক দোকানদার বলেন এখানে বেশ কিছু ভ্রাম্যমান দোকান রয়েছে। কিছু লোক এসে এসব দোকান ভেঙে দেয়া হবে বলে যায়।

এর আগে নদীর তীর দখল করে নির্মাণ করা হয়েছে নতুন ফিশারি ঘাট। তার পাশেই এখন হচ্ছে বরফ কল।

কেন্দ্রীয় আওয়ামী মৎসজীবি লীগের সহ-সভাপতি ও চট্টগ্রাম সোনালী যান্ত্রিক মৎস সমবায় সমিতির সভাপতি আমিনুল হক সরকার বাবুলের কাছে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, সব কথা বলা যায় না, সব সময় বক্তব্যও দেয়া যায় না। কারা কর্ণফুলী নদী ভরাট করছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন এটি জেলা মৎস অধিদফতর করছে। তবে আপনারা লিখলে তো আমাদের বারোটা বাজবে।

জাতীয় নদী কর্ণফুলী রক্ষা পরিষদের নেতা সাংবাদিক সরোয়ার আমিন বাবু বলেন, এমনিতেই দখলে অনেকটা সরু হয়ে গেছে কর্ণফুলী নদী। এর পরেও চলছে নদী দখল। নদীর পাড়ে যে কোন স্থাপনা নির্মাণের ক্ষেত্রে নদী দখল করা যাবে না। এক্ষেত্রে বন্দর ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর মধ্যে সমন্বয় হওয়া প্রয়োজন।

চট্টগ্রাম মহানগর নদী ও খাল উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সাধার সম্পাদক সাংবাদিক আলিউর রহমান বলেন, বন্দরের ব্যর্থতার কারণে প্রতিনিয়ত বেদখল হচ্ছে কর্ণফুলী নদী। একটি মহল প্রতিনিয়ত দখল প্রতিযোগিতায় লিপ্ত রয়েছে। কর্ণফুলীসহ চট্টগ্রামের নদীগুলো বাঁচাতে আমরা সাম্পান বাইচ, মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি পালন করেছি। নদী দখল করে বরফ কল নির্মাণ বন্ধ করা না হলে কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

বন্দরের প্রাণপ্রবাহ জাহাজ চলাচলের মূল নেভিগেশন চ্যানেলের ক্যাপিটাল ড্রেজিং ও মেইনটেনেন্স ড্রেজিং না হওয়ায় ক্রমাগত ভরাট হয়ে নাব্যতা হারাচ্ছে কর্ণফুলী। বিরান হয়ে যাচ্ছে নদীটির সুস্বাদু ও অর্থকরী মাছ। জীববৈচিত্র্য ধ্বংসের মুখে। কর্ণফুলীর মোহনায় গড়ে উঠেছে শত শত অবৈধ স্থাপনা। পাঁচ শতাধিক শিল্প, কল-কারখানা, অসংখ্য জাহাজ, নৌযানের বিষাক্ত বর্জ্যের সঙ্গে ৬০ লাখ নগরবাসীর পয়ঃবর্জ্যে মারাত্মক বিষিয়ে উঠেছে এ নদী।

গত বছরের ১২ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রাম সফরকালে বোট ক্লাবে এক অনুষ্ঠানে এ বিষয়ে তীব্র ক্ষোভ-অসন্তোষ প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে কর্ণফুলীর ড্রেজিং ও সুরক্ষায় বিভিন্ন সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু বছর অতিবাহিত হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে নির্বিকার রয়েছে।

সাড়ে ৫শ’ ছোট-বড় শিল্প-কারখানা, প্ল্যান্ট, দেশি-বিদেশি জাহাজ কোস্টার নৌযান ট্রলারের বিষাক্ত বর্জ্য-ময়লা-জঞ্জাল ও আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে কর্ণফুলী নদী।

দীর্ঘদিন থমকে আছে ভূমি দখলমুক্ত করতে মোবাইল কোর্টের অভিযান। নদী গবেষক অধ্যাপক মনজুরুল কিবরিয়া বলেছেন, দেশের অন্য কোন নদ-নদীর তুলনায় কর্ণফুলীর রয়েছে আলাদা কিছু ভূ-প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য। এগুলোর সুরক্ষা জরুরি। কর্ণফুলী বাঁচলে বন্দর বাঁচবে। কিন্তু নদীটি দিন দিন যৌবন হারিয়ে ফেলছে। বেপরোয়া দখল, দূষণ আর পলি-বালি ও জঞ্জালে ভরাট হয়ে বিপন্ন হয়ে উঠেছে কর্ণফুলীর বুক।

ডেইলি বাংলাদেশ/আজ/এমআরকে

সর্বাধিক পঠিত
ওপরে যেতে