করোনা সংকটে ৬০০ পরিবারের পাশে তারা দুজন

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৫ ১৪২৬,   ১৪ শা'বান ১৪৪১

Akash

করোনা সংকটে ৬০০ পরিবারের পাশে তারা দুজন

হাসান বিশ্বাস, ঢাবি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:২৯ ২৬ মার্চ ২০২০  

সাদ বিন কাদের চৌধুরির উদ্যোগে এবং মতিউর রহমান জামালের অর্থায়নে এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

সাদ বিন কাদের চৌধুরির উদ্যোগে এবং মতিউর রহমান জামালের অর্থায়নে এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কবল থেকে রক্ষা করতে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। তারপর থেকে প্রায় দুই কোটি মানুষের পদচারণের ফলে ব্যস্ত ঢাকা শহরটি আজ একদম নিরব। যেনো কোথাও কেউ নেই! দেশের এমন ক্রান্তিলগ্নে অসহায় হয়ে পড়েছেন শহরের ‘দিনে এনে দিনে খাওয়া’ মানুষগুলো। বেকার সময় পার করছেন হাজার হাজার রিকশাচালক- দিনমজুর। ফলে দুশ্চিন্তায় সময় পার করছেন তারা। এমন অসহায় হতদরিদ্র ৬০০টি পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন রাজধানীর লালবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান জামাল ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী।  

মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) রাতে রাজধানীর পুরান ঢাকায় ৬০০ রিকশাচালকদের মাঝে এই খাদ্যসামগ্রী ও করোনাভাইরাস প্রতিরোধের জন্য মাস্ক, হিক্সসল ও সাবান বিতরণ করা হয়েছে।

সাদ বিন কাদের চৌধুরির উদ্যোগে এবং মতিউর রহমান জামালের অর্থায়নে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। সাদ বিন কাদের চৌধুরী বলেন, আমি যখন জনাব মতিউর রহমান জামালকে এই অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাঁড়াতে বলি, সঙ্গে সঙ্গে তিনি রাজি হয়ে যান এবং আমাকে কাজ করতে নির্দেশ দিয়ে বলেন, প্রয়োজনে আমি আমার সবটা দিয়ে দিবো এই অসহায় মানুষগুলোকে। আমার তাদের জন্য কাজ করতে ভালো লাগে। সাদ জানান, সম্পূর্ণ জামালের অর্থায়নেই এই কর্মসূচি সম্পন্ন হয়েছে। 

তিনি জানান, দেশে করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা এবং পরিষ্কার পরিছন্নতার উপলক্ষে পুরান ঢাকার লালবাগ থানার বিভিন্ন এলাকায় ৬০০ জন রিকশা চালকদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী, মাস্ক, হিক্সসল ও সাবান বিতরণ করা হয়। এ সময় জনপ্রতি রিকশা চালককে পাঁচ কেজি চাল, আধা কেজি ডাল, একটি মাস্ক, একটি হিক্সসল ও একটি তিব্বত বল সাবান দেয়া হয়। এছাড়াও করোনাভাইরাস সম্পর্কে তাদের সচেতন থাকার জন্য বলা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, কোনো জনসমাগম করে এ কর্মসূচি পালন করা হয়নি। দিনের বেলা জনসমগম হয়ে যাবে এই চিন্তা করে রাতে রাস্তায় রাস্তায় হেঁটে রিকশাচালকের হাতে পাঁচ কেজি চাল, আধা কেজি ডাল, একটি মাস্ক, একটি হিক্সসল ও একটি তিব্বত বল সাবান তুলে দেয়া হয়।

ছাত্রলীগের এই নেতা বলেন, এই দুর্যোগের সময়ে সুস্থ থাকা এবং ক্ষুধার জ্বালা নিবারণ দুটিই জরুরি। প্রাথমিকভাবে ৬০০ জনের জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে। পরিবারগুলা ভালো থাকুক। আমাদের এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

ছাত্রলীগের এই কেন্দ্রীয় নেতা বিত্তবানদের আহ্বান করে বলেন, সবাই যার যার সামর্থ্যানুযায়ী এগিয়ে আসুন। বিত্তবানরা এগিয়ে না আসলে সমাজের নিন্ম আয়ের মানুষেরা করোনা নয়, খাবার না খেয়ে মারা যাবে। আমাদের মত দেশে সরকারের একার পক্ষে কষ্টকর। তাই সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টার প্রয়োজন।

লালবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান জামাল বলেন, এই ধরনের কাজ করতে আমার ভালো লাগে। এই বিপদের সময় রিকশাচালক ও দিনমজুর ভাইদের জন্য প্রয়োজনে সব খালি করে দিব। এছাড়াও সমাজের বিত্তবানরা যার যার সামর্থ্যানুযায়ী এই দুর্যোগের সময় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম